এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > নির্বাচন কমিশনকে পঞ্চায়েতের নিরাপত্তা নিয়ে ‘গোপন রিপোর্ট’ পাঠাল রাজ্য, বাড়ল জল্পনা

নির্বাচন কমিশনকে পঞ্চায়েতের নিরাপত্তা নিয়ে ‘গোপন রিপোর্ট’ পাঠাল রাজ্য, বাড়ল জল্পনা

কলকাতা হাইকোর্ট রাজ্য প্রশাসন ও রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছে কোন বুথে কত সশস্ত্র পুলিশ দেওয়া হবে তার পুঙ্খানুপুঙ্খ রিপোর্ট আদালতে জমা দিতে হবে। আজ সেই রিপোর্ট জমা পড়ার কথা থাকলেও, রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল এর জন্য আরো অতিরিক্ত দিন চান আজ আদালতে, ফলে আদলত আগামী মঙ্গলবারের শুনানিতে তা জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এদিকে, পঞ্চায়েত ভোটে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে কমিশনকে পাঠানো রাজ্যের রিপোর্ট সম্পর্কে মুখ খুলতে চাইছেন না কেউই। কিন্তু এরমধ্যেই কলকাতার এক সংবাদমাধ্যমের দাবি, তাদের সূত্র অনুযায়ী, ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকার রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে এক গোপন রিপোর্ট পাঠিয়েছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

সেই রিপোর্ট অনুযায়ী, রাজ্যের পুলিশ দিয়েই নির্বাচন করতে চলেছে রাজ্য সরকার, কেন্দ্রিয়বাহিনী আনার কোনো তথ্য সেই রিপোর্টে নেই। ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, রাজ্যের ৪৬ হাজার সশস্ত্র পুলিসকর্মী রয়েছে, কলকাতা পুলিসের সশস্ত্র বাহিনী সংখ্যা ১২ হাজার এবং আবগারি দফতর, বন দফতর ও কারা দফতরের মোট সশস্ত্র বাহিনীর সংখ্যা ২ হাজার। ওই পরিমান সশস্ত্র বাহিনীকেই বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে রাখা হবে, বুথ হিসাবে কজন রাখা হবে সেই নিয়ে কোনো কিছু জানা যাচ্ছে না (সেই সংখ্যাটা ১ ও হতে পারে বলে দাবি করা হয়েছে)। এছাড়া নির্বাচনের অন্যান্য কাজে ভিন্ন রাজ্য থেকে আসা বাহিনীকে কাজে লাগানো হবে। তবে ভিন রাজ্য থেকে কত বাহিনী আনা হবে সেই সম্পর্কেও ওই রিপোর্টে কিছু জানানো হয় নি। এই রিপোর্টই যদি আদালতে পেশ করা হয়, আদালত তাতে কতটা সন্তুষ্ট হবে তার উত্তর পাওয়া যাবে আগামী মঙ্গলবার। যদিও এই খবরের সত্যতা বা সূত্র সম্পর্কে ওই সংবাদমাধ্যমে কিছু লেখা নেই, প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফেও এই খবরের সত্যতা যাচাই করে দেখা সম্ভব হয় নি। এই প্রবন্ধ সম্পূর্ণরূপে ওই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের পরিপ্রেক্ষিতে করা, কোনোভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বা কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা দলের সম্মানহানির উদ্দেশ্যে রচিত নয়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!