এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সরকারকে পঙ্গু করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন মোদী-শাহ, বিস্ফোরক অভিযোগ

সরকারকে পঙ্গু করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন মোদী-শাহ, বিস্ফোরক অভিযোগ

চূড়ান্ত ডামাডোলের পরিস্থিতি কর্নাটকে। টলমল করছে মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীর সিংহাসন।যেকোনো মুহূর্তে পতন ঘটতে পারে কংগ্রেস জেডিএস এর জোট সরকারের। এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া তীব্র আক্রমন করলেন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে। কর্ণাটকের এই অস্থির অবস্থার জন্য সরাসরি নিশানা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর দিকে।

সিদ্দারামাইয়ার বিস্ফোরক অভিযোগ টাকা, ক্ষমতা আর মন্ত্রিত্বের লোভ দেখিয়ে বিজেপি কর্ণাটক সরকারকে ভেঙে দিচ্ছে। এইভাবে গণতন্ত্র এবং মানুষের রায়ের বিরুদ্ধাচারণ করছে তারা।বিজেপির থেকে কংগ্রেস-জেডিএস জোট বেশি মানুষের ভোট পেয়ে কর্নাটকে ক্ষমতায় এসেছে। কিন্তু মানুষের রায়কে অসম্মান করে অনৈতিক ভাবে বর্তমান জোট সরকারকে পঙ্গু করে সিংহাসন দখল করতে চাইছে বিজেপি,এমনটাই জানান প্রাক্তন এই মুখ্যমন্ত্রী।

পাশাপাশি তিনি কর্ণাটক বিধানসভার স্পিকারের কাছে অনুরোধ জানান, দলত্যাগ-বিরোধী আইন জারি করে পদত্যাগ করতে থাকা মন্ত্রী-বিধায়কদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করা হোক। এমনকি তাঁদের ৬ বছর ভোটে লড়ার থেকে নির্বাসিত করা হোক।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, গত রবিবার জোট সরকারের ১১ জন কংগ্রেস বিধায়ক স্পিকারের সচিবালয়ে নিজেদের ইস্তফাপত্র জমা দিয়ে আসেন।ছুটির দিন থাকায় সে সময় স্পিকার সচিবালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। আজ স্পিকার ওই সমস্ত ইস্তফাপত্র খতিয়ে দেখবেন।এরপর তিনি প্রত্যেক বিধায়ককে ডেকে পাঠাবেন।তাঁদের কাছে জানতে চাওয়া হবে যে তাঁদের কোনোরকম বলপূর্বক ইস্তফা দেওয়ানো হচ্ছে নাকি তাঁরা নিজের ইচ্ছায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিধায়কদের সঙ্গে কথা বলার পর যদি স্পিকার সন্তুষ্ট হন, কেবলমাত্র সেক্ষেত্রেই ইস্তফাপত্র গ্রহণ করা হবে।

২২৪ আসনের কর্ণাটক বিধানসভায় এই মুহূর্তে কংগ্রেস জেডিএস জোট সরকারের কাছে ছিল ১১৬ জন বিধায়ক।শরিক দুই নির্দল বিধায়ক এইচ নাগেশ ও আর শঙ্কর ইতিমধ্যে মন্ত্রিত্ব ছেড়ে সরকার থেকে সমর্থন তুলে নিয়েছেন।সূত্রের খবর বিজেপি সরকার গড়লে তাতে সমর্থন দেবেন এই দুই নির্দল বিধায়ক। এর পর কংগ্রেসের ওই ১১ জন বিধায়কের ইস্তফা গৃহীত হলে জোট সরকারের বিধায়ক সংখ্যা পৌঁছবে ১০৩ এ। যা কর্ণাটক বিধানসভার ম্যাজিক ফিগার ১১৩ এর থেকে অনেকটাই কম হওয়ায় সংখাগরিষ্ঠতা হারাবে জোট সরকার।

এইমুহুর্তে বিজেপির কাছে আছে ১০৫ জন বিধায়ক। নির্দল দুজনের সমর্থন পেয়ে তা দাঁড়াচ্ছে ১০৭ এ। দলত্যাগী ১১ জন কংগ্রেস বিধায়কের মধ্যে ৬ জন বিজেপিকে সমর্থন দিলেই কর্নাটকে সরকার গড়তে সক্ষম হবে ভারতীয় জনতা পার্টি।মুখ্যমন্ত্রীর পদ হারাতে হবে কুমারস্বামীকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!