এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > সাড়ে ৬ কোটি টাকার পিএফ জমায় পরে নি! দপ্তরের কড়া ব্যবস্থা তৃণমূল পরিচালিত পুরসভার বিরুদ্ধে

সাড়ে ৬ কোটি টাকার পিএফ জমায় পরে নি! দপ্তরের কড়া ব্যবস্থা তৃণমূল পরিচালিত পুরসভার বিরুদ্ধে

দুর্নীতি যেন আর পিছু ছাড়ছে না তৃণমূলের। এমনিতেই বিগত কয়েকদিনে একটার পর একটা দুর্নীতির অভিযোগে তৃণমূল দল রীতিমতন চাপে পড়েছে। তার ওপর সিবিআইয়ের কর্মকাণ্ডে দলের হেভিওয়েট নেতা মন্ত্রীরা খানিকটা দিশাহারা। আর এই অবস্থাতেই আরো একবার আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ উঠল তৃণমূল দলের বিরুদ্ধে। বিরোধীদের দাবি, তৃণমূল দলের স্থানীয় স্তরে থেকে উচ্চ স্তরের প্রত্যেকেই কোন না কোন সময়ে আর্থিক দুর্নীতিতে জড়িয়েছে। এখন এক এক করে নাম সামনে আসছে বলে তাঁরা কোথায় যাবেন তা ভেবে পাচ্ছেন না।

এদিন দুর্গাপুরে তৃণমূল পরিচালিত পুরসভার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল সহকর্মীদের প্রভিডেন্ট ফান্ডের সাড়ে 6 কোটি টাকার আর্থিক কেলেঙ্কারির। আঞ্চলিক পি এফ দপ্তর দুর্গাপুর পৌরসভাকে সাফাই কর্মীদের বকেয়া সাড়ে 6 কোটি টাকা জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু পুরসভা সেই নির্দেশ না মানায় পিএফ দপ্তর থেকে পুরসভার আর্থিক কাজ হয় যে রাষ্ট্রায়ত্ত ব‍্যাংকে,সেখানে সোজা চিঠি দিয়ে জানানো হল, পুরসভার তরফ থেকে ব্যাংকের সাড়ে 6 কোটি টাকা জমা না পড়লে বাকি টাকা লেনদেন করা যাবে না। ফলত পুরসভার আর্থিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ার মুখে দাঁড়িয়েছে।

পিএফ দপ্তরের অভিযোগ, বিভিন্ন ওয়ার্ডের সাফাই কর্মীরা যে কাজ করেন তার জন্য শহরাঞ্চলে রাজ্য সরকারের চালু করা ওয়েস্টবেঙ্গল আরবান এমপ্লয়মেন্ট স্কিম অনুযায়ী কিছু দৈনিক মজুরি আছে। সেই মজুরি অনুসারে 2011 সালের 8 জানুয়ারি থেকে 2017 সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওই কর্মীদের কোন পিএফ এর টাকা জমা পড়েনি।

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রকের নির্দেশে 2011 সালের 28 জানুয়ারি থেকেই পুরসভার সমস্ত কর্মীকে প্রভিডেন্ট ফান্ড আইনের আওতায় আনা হয়। অন্যদিকে দুর্গাপুর পৌরসভার থেকে দাবি করা হয়েছে, সাফাই কর্মীরা সরকারি প্রকল্পে কাজ করে। তাই পিএফ দেওয়ার কোন কথা সে ক্ষেত্রে বলা নেই। এ নিয়ে আদালতে একটি মামলা হয় 2017 সালে। সেই সময় থেকে এ বছরের 19 জুলাই পর্যন্ত দফায় দফায় শুনানি হয়। অবশেষে 29 আগস্ট পি এফ দপ্তর পুরসভাকে পরিষ্কার করে জানিয়ে দেয় ছ কোটি 59 লক্ষ টাকা 15 দিনের মধ্যে পুরসভাকে জমা দিতে হবে। নচেৎ ব‍্যবস্হা নেওয়া হবে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

প্রথম থেকেই পিএফ সংক্রান্ত অভিযোগে আন্দোলন জানিয়ে এসেছে আইএনটিটিইউসি। তাঁদের তরফে বলা হয়েছে, তাঁরা পুরসভার সামনে বিক্ষোভ দেখানোর পরেও পুরসভা বকেয়া মেটায়নি। অন্যদিকে পিএস দপ্তর থেকে ব্যাংকে চিঠি দেওয়া হয়েছে এবং ব্যাংকও সেই নির্দেশকে কার্যকর করেছে।

ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে পুরসভার অন্যান্য আধিকারিকরা মনে করতে চলেছেন, পৌরসভা এইবার আর্থিক সমস্যায় জর্জরিত হবে। অন্যদিকে মেয়র দিলীপ অগস্তি জানান, “পিএফ ট্রাইব্যুনালে আবেদন জানানো হবে। কেন পুরসভা বকেয়া জমা দিতে বাধ্য নয়, তা বিশদে তুলে ধরা হবে। ইতিমধ্যে সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।”

দুর্গাপুর পুরসভা বনাম পিএফ মন্ত্রকের এই টানাটানিতে এখনো পর্যন্ত রাজ্য তৃণমূলের তরফে কোন বিবৃতি জারি হয়নি। তবে এই ঘটনা সামনে আসার পরে তৃণমূল নেতৃত্ব কী ব্যবস্থা নেন সেদিকেই চোখ থাকবে সবার।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!