এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সারদা কাণ্ডে তৃণমূলের পদাধিকারীদের জন্য বড়সড় ধাক্কা, জেরার মুখে পড়তে চলেছেন হেভিওয়েটরা

সারদা কাণ্ডে তৃণমূলের পদাধিকারীদের জন্য বড়সড় ধাক্কা, জেরার মুখে পড়তে চলেছেন হেভিওয়েটরা


সারদা এবং নারদায় তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা মন্ত্রীরা জড়িত বলে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ আসতে শুরু করেছিল। অতীতে সারদাকাণ্ডে তৃণমূলের অনেক হেভিওয়েটরা শ্রীঘরেও তাদের জীবন যাপন করেছিলেন। তবে মাঝে এই সারদা, নারদা নিয়ে সিবিআইয়ের অতিসক্রিয়তা চোখে পড়েনি। কিন্তু এবার ফের এই ব্যাপারে সক্রিয় হতে শুরু করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

সূত্রের খবর, আজ থেকে তৃণমূলের পদাধিকারীদের ডেকে পাঠিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করবে সিবিআই। ইতিমধ্যেই তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সীর সঙ্গে সিবিআইয়ের কথা হয়েছে। জানা গেছে, সুব্রতবাবু তদন্তে সব রকম সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।

আর এবার সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে জেরার জন্য নোটিশ পাঠানো হয়েছে, তৃণমূলের রাজ্যসভার নেতা ডেরেক ও ব্রায়েন, দীনেশ ত্রিবেদী এবং তমোনাশ ঘোষকে। মূলত সারদার টাকা তৃণমূলের কোনো প্রভাবশালীর কাছে পৌঁছেছিল কিনা, তা জানতেই এই সমস্ত ব্যক্তিদের জেরা করতে চাই সিবিআই বলে জানা গেছে।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে সিবিআইয়ের এক শীর্ষকর্তা বলেন, “সারদা তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে। পুজোর আগেই যাতে চূড়ান্ত চার্জশিট দেওয়া যায়, তার চেষ্টা করা হচ্ছে। এখন আমাদের লক্ষ্য প্রভাবশালীদের কাছে টাকা পৌঁছেছিল কিনা, তা খুঁজে বের করা। সেই কারণেই তৃণমূলের পদাধিকারীদের সঙ্গে কথা বলা অত্যন্ত জরুরী।”

কিন্তু তৃণমূলের ডেরেক ও ব্রায়েনকে সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে নোটিশ পাঠানো হলেও বর্তমানে সংসদ চলায় তার পক্ষে সময় দেওয়া সম্ভব হবে না বলে জানা গেছে। বস্তুত, এর আগেও ডেরেক ও ব্রায়েনকে জেরার জন্য নোটিশ পাঠিয়েছিল সিবিআই। কিন্তু তখনও সংসদ চলার জন্য তিনি সময় দিতে পারেননি। ফলে এবারও সেই ক্ষেত্রে কিছুটা বাধার আঁচ পাচ্ছে বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে তৃণমূল বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ এখনও সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে কোনো নোটিশ পাননি বলে তৃনমূলের দাবি। তবে শুধু তৃণমূল নয়, তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যাওয়া মুকুল রায়কেও জেরার ব্যাপারে সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে ডাকা হতে পারে। সব মিলিয়ে পুজোর মরসুমের আগেই সমস্ত হেভিওয়েটদের জেরাপর্ব শেষ করে সারদাকাণ্ডে চূড়ান্ত চার্জশিট দিতে উদ্যোগী কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!