এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের ‘ড্রেসকোডও’ কি এবার চালু হয়ে গেল শাসকদলে?

শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের ‘ড্রেসকোডও’ কি এবার চালু হয়ে গেল শাসকদলে?

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই নীল সাদা রং দিয়ে রাজ্যকে সাজিয়ে তোলাই লক্ষ ছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আর মুখ্যমন্ত্রীর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হলে এবার দলীয় কর্মীদেরও শপথগ্রহনে একপ্রকার ড্রেসকোডে দেখা গেল এদিন। সূত্রের খবর, গতকাল হুগলি জেলা পরিষদের সভাধিপতি নির্বাচনের কর্মসূচী ছিল। আর সেইমত সকাল 11 টায় জেলা পরিষদের সামনে হাজির হন তৃনমূলের নির্বাচিত সদস্যরা। ছেলেদের পরনে নীল সাদা পাঞ্জাবি পাজামা এবং মেয়েদের পরনে ছিল সাদা এবং সবুজ শাড়ি। সাথে ধামসা মাদলের তালে আদিবাসী নাচের মিছিল করে এদিন সমস্ত সদস্যরা যান রবীন্দ্রভবনে।

এদিন প্রত্যেক নির্বাচিত সদস্যকে শপথবাক্যপাঠ করান জেলার অতিরিক্ত জেলাশাসক প্রলয় মজুমদার। আর এরপরেই জেলা পরিষদের সদস্য শৈলেন সিংহ হুগলী জেলা পরিষদের সভাধিপতি হিসাবে শেখ মেহবুব রহমানের নাম প্রস্তাব করলে অন্যান্য সদস্যরা হাত তুলে তা সমর্থন জানান। অন্যদিকে অপর জেলা পরিষদ সদস্য মানিক দাস সহকারী সভাধিপতি হিসাবে সুমনা সরকারের নাম প্রস্তাব করলে তাতে সমর্থন জানান বাকি সদস্যরা।

 

সভাধিপতি হিসাবে পুনরায় নির্বাচিত হয়ে শেখ মেহবুব রহমান বলেন, “দ্বিতীয়বার আমাকে দ্বায়িত্ব দেওয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আমি কৃতজ্ঞ। যে কাজগুলি বাকি আছে এখন সেগুলি করাই হবে আমাদের মূল লক্ষ।” অন্যদিকে সহকারি সভাধিপতি সুমনা সরকার বলেন, “হুগলীর মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি আস্থা রেখেই এই বিরোধীশূন্য জেলাপরিষদ আমাদের উপহার দিয়েছেন। ভবিষ্যতে মানোষের আশা পূরনের চেষ্টা করব।” এদিনের এই শপথগ্রহন অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃনমূল পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস, তপন দাশগুপ্ত, অসীমা পাত্র, বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল ছাড়াও হুগলির জেলাশাসক জগদীশ প্রসাদ মিনা, পুলিশ সুপার সুকেশ জৈন সহ অন্যান্যরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন এই অনুষ্টানের শেষে বিজেপির ডাকা বনধকে খোঁচা দিয়ে কাজই যে রাজ্য সরকারের মূল লক্ষ সেই প্রসঙ্গে জেলা তৃনমূলের পর্যবেক্ষ তথা রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস বলেন, ” জনগন নিজেদের কাজকর্ম অব্যাহত রেখে বিজেপিকে যোগ্য জবাব দেয়েছে। সামনেই লোকসভা। তাই এখন যেসব কৃজ আটকে রয়েছে সেগুলিকে দ্রুত শেষ করুন।” জানা গেছে, কদিনের মধ্যেই এই হুগলী জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষও নির্বাচন করা হবে।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!