এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > সংখ্যালঘু উন্নয়নে অনিয়মের অভিযোগ তুললেন খোদ তৃণমূল নেতা ও সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান -জল্পনা তুঙ্গে

সংখ্যালঘু উন্নয়নে অনিয়মের অভিযোগ তুললেন খোদ তৃণমূল নেতা ও সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান -জল্পনা তুঙ্গে

Priyo Bandhu Media

 

রাজ্যে শাসন ক্ষমতায় আসার পর থেকেই সংখ্যালঘু উন্নয়নে ক্ষেত্রে বিশেষ মনোযোগী হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। জেলায় জেলায় মাইনোরিটি ভবন থেকে শুরু করে ঐক্যস্রী ভাতা প্রদান, সংখ্যালঘু আবাস থেকে শুরু করে ছাত্রাবাস নির্মাণ সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নমুখী কার্যক্রম রাজ্যের সংখ্যালঘু মানুষদের জন্য নিয়োজিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এবার জলপাইগুড়ি জেলায় সংখ্যালঘু উন্নয়ন তহবিল থেকে গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের জন্য জেলা প্রশাসনকে সতর্ক করলেন পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান আবু আয়েশ মন্ডল।

সূত্রের খবর, এদিন জলপাইগুড়ি জেলায় জেলা সমাহর্তার কনফারেন্স রুমে একটি বিশেষ বৈঠকে যোগ দেন রাজ্য সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারপার্সন। উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জলপাইগুড়ি জেলার জেলাশাসক অভিষেক তিওয়ারি থেকে শুরু করে বিভিন্ন জেলা প্রশাসন এবং রাজ্য প্রশাসনের আধিকারিকবর্গ। আর এই বৈঠকের পরে পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান আবু আয়েশ মন্ডল বলেন, “জলপাইগুড়ি জেলায় সংখ্যালঘু মানুষদের উন্নয়নের জন্য একাধিক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

সম্প্রতি সংখ্যালঘু মানুষদের ঘর তৈরি করার জন্য যে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে, তাতে কিছু অভিযোগ উঠেছে। জেলা প্রশাসনকে এই বিষয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও জেলা প্রশাসনের কর্তাদের সেই বিষয়ে সতর্কবার্তাও প্রদান করা হয়েছে।” আগামী দিনে জেলায় সংখ্যালঘু মানুষদের জন্য প্রশাসনের তরফ থেকে যে সমস্ত কাজ হবে, তাতে যেন কোনো রকমের অনিয়ম না হয়, তার জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন আবু আয়েশ মন্ডল।

তিনি আরও বলেন, “বর্তমানে আগের তুলনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উন্নয়নের জন্য অনেক বেশি কাজ করা হচ্ছে। কিন্তু এই সুযোগে কিছু মানুষ বিশেষ সুযোগ-সুবিধা নিয়ে নিচ্ছেন।” যদিও এমনটা হওয়া উচিত নয় বলেই তিনি মনে করেন। সূত্রের খবর, রাজ্যের সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান জানিয়ে দিয়েছেন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নাম করে কিছু মানুষ বিশেষ সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করছেন। তবে এই নিয়ে জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসনকে এদিন সতর্কবার্তা প্রদান করেছেন আয়েশ মন্ডল সাহেব।

সবকিছু মিলিয়ে রাজ্যের রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশ মনে করছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কার্যকালে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের উন্নয়নের জন্য যত পরিমাণ কাজ হয়েছে, বিগত দিনের তুলনায় তা একটা নজির বলেই মনে করা হয়। কিন্তু এই ধরনের উন্নয়নমুখী কাছে যদি কোনোরূপে অনিয়মের অভিযোগ সামনে আসে, তাহলে জনমানসে তার প্রভাব ভালোমতো পড়বে না। তাই সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যানের এই সতর্কবার্তা যথেষ্ট প্রাসঙ্গিক বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!