এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ওভারলোডিংয়ে জরিমানা 50 হাজার থেকে 1 লক্ষ, বেআইনি বালি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরেই দাম হয়ে গেল দ্বিগুণ!

ওভারলোডিংয়ে জরিমানা 50 হাজার থেকে 1 লক্ষ, বেআইনি বালি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরেই দাম হয়ে গেল দ্বিগুণ!

সম্প্রতি ঝাড়গ্রামের প্রশাসনিক বৈঠকে অবৈধ বালি খাদান রুখতে জেলার প্রশাসনিক কর্তা ব্যক্তিদের কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে ক্ষোভ উগরে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এই বেআইনি খাদানগুলো অবিলম্বে বন্ধ করুন। এর ফলে নদীর সর্বনাশ হয়ে যাচ্ছে।”

পাশাপাশি এই অবৈধ খাবার বন্ধ করতে মুখ্যমন্ত্রীর কড়া ধমকের মুখে পড়তে হয় জেলার ভূমি দফতরের আধিকারিকদেরও। আর প্রশাসনিক প্রধানের এহেন নির্দেশিকার পরেই এই বেআইনি বালি খাদান নিয়ে কড়া পদক্ষেপের পথে ঝাড়গ্রাম জেলা প্রশাসন। আর জেলা প্রশাসনের এহেন পদক্ষেপে গোটা ঝাড়গ্রাম শহর জুড়ে এখন বালির কালোবাজারিও শুরু হয়ে গিয়েছে।

সূত্রের খবর, গত বৃহস্পতিবার ঝাড়গ্রামের 6 নম্বর জাতীয় সড়কে বালি বোঝাই ছটি ডাম্পার আটক করে জেলা ভূমি দপ্তর। অভিযোগ, এখানে 330 সিএফটির কাগজ থাকলেও পাঁচটি গাড়িতে 500 সিএফটি বালি ছিল। আর এর জেরেই ছটি গাড়িকেই এক লক্ষ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। আর প্রশাসনের পক্ষ থেকে এহেন ধরপাকড় শুরু হতে না হতেই এবার ট্রাকটার পিছু যে বালির দাম আগে 1200 টাকা ছিল, গতকাল থেকে সেই বালি 2200 থেকে 2400 টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এমনকি ডাম্পারের ক্ষেত্রেও সেই বালির দাম দ্বিগুণ হয়ে গিয়েছে। আর এর ফলেই চরম সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু এভাবে আর কতদিন? এদিন এই প্রসঙ্গে শহরের রঘুনাথপুর এলাকার ইমারতি দ্রব্যের ব্যবসায়ী অশোক দণ্ডপাঠ বলেন, “অধিকাংশ খাদান বন্ধ। তাই বালির দাম বাড়বেই। বাধ্য হয়েই ট্রাকটর বিছু 2 হাজার টাকা থেকে 2200 টাকায় এই বালি বিক্রি করতে হচ্ছে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে এই অবৈধ বালি খাদানের ব্যাপারে যে জেলা প্রশাসন কোনো ওরকম নমনীয় মনোভাব দেখাবে না এদিন সেই ব্যাপারে নিজেদের মনোভাব আরও একবার স্পষ্ট করে দিয়েছেন ঝাড়গ্রামের জেলাশাসক আয়েশা রানি এ। এদিন তিনি বলেন, “গাড়িতে কোনোরূপ ওভারলোডিং করা যাবে না।” তবে বালির দাম বৃদ্ধি নিয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে সেই ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ারও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে এখন ঝাড়গ্রামে বালির দাম চড়া হওয়ায় প্রবল সমস্যায় সেখানকার মানুষ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!