এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দলের সাংসদ আর্থিক প্রতারণার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত – মন্তব্য করে বিতর্ক বাড়ালেন রাজ্যের মন্ত্রী

দলের সাংসদ আর্থিক প্রতারণার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত – মন্তব্য করে বিতর্ক বাড়ালেন রাজ্যের মন্ত্রী

Priyo Bandhu Media

দীর্ঘদিন ধরেই তাঁর বিরুদ্ধে চিটফান্ড কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠে আসছে। কিন্তু বিরোধীদের তরফে তাঁকে নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগ করা হলেও তাঁর দলের কোন নেতা- মন্ত্রীরা এতদিন সেই তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ কেডি সিংয়ের বিরুদ্ধে কোনো মুখ খোলেননি। কিন্তু এবার দলীয় সাংসদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে দেখা গেল মমতার মন্ত্রিসভায় অন্যতম সদস্য তথা রাজ্যের ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের মন্ত্রী সাধন পান্ডেকে এমনটাই দাবি কলকাতার এক ওয়েব পোর্টালের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই কেডি সিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে যে, তিনি এই চিটফান্ডের মাধ্যমে রাজ্যের অনেক মানুষের কাছ থেকে 1900 কোটি টাকার মত তুলেছেন। পরবর্তীকালে তিনি এই সমস্ত টাকা ফেরত না দেওয়ায় কিছুদিন আগেই এই কেডি সিংয়ের 238 কোটি টাকার সম্পত্তি এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের পক্ষ থেকে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এবারে সেই কেডি সিংয়ের বিরুদ্ধেই মুখ খুললেন রাজ্যের মন্ত্রী সাধন পান্ডে।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

পোর্টালের খবর অনুযায়ী, সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মন্ত্রী সাধন পান্ডে বলেন, “রাজ্যের অনেক সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা নিলেও পরে তিনি আর সেসব টাকা ফেরত দেননি। আর এই বিষয়ে রাজ্যের ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের কাছে অনেক অভিযোগ জমা পড়েছে।” আর এরপরই সাধন পান্ডের স্পষ্ট জবাব, “দলের সাংসদ আর্থিক প্রতারণার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত রাজ্যের বহু মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, কেডি সিংকে আপাতত দল থেকে বহিষ্কার করা হলেও এদিন সেই কেডি সিংয়ের কথা তুলে ধরে তিনি যে সাধারণ মানুষকে অনেকটাই বিপাকে ফেলেছেন সেই কথা উল্লেখ করে আদতে নিজের দলেরই অস্বস্তি বাড়িয়ে দিলেন রাজ্যের তৃণমূল সরকারের এই হেভিওয়েট মন্ত্রী।

  প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফেও এই খবরের সত্যতা যাচাই করে দেখা সম্ভব হয় নি। এই প্রবন্ধ সম্পূর্ণরূপে ওই পোর্টালে প্রকাশিত খবরের পরিপ্রেক্ষিতে করা, কোনোভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বা কোনো ব্যক্তি বা দলের সম্মানহানির উদ্দেশ্যে রচিত নয়।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!