এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সব্যসাচী দত্তের পাশে দাঁড়িয়ে বিস্ফোরক মুকুল রায়, মেয়রের বিজেপি যোগের ইঙ্গিত- বিতর্ক তুঙ্গে

সব্যসাচী দত্তের পাশে দাঁড়িয়ে বিস্ফোরক মুকুল রায়, মেয়রের বিজেপি যোগের ইঙ্গিত- বিতর্ক তুঙ্গে


অনেকে দাবি করেন, সব্যসাচী দত্তের বাড়িতে গিয়ে লুচি আলুর দম খেয়ে রাজারহাট নিউটাউনের এই তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধাননগরের মেয়রকে প্রথম বিতর্কে জড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনিই। আর এইবার সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যখন উদ্যোগী তৃণমূল, ঠিক তখনই আরও একবার এই সব্যসাচী দত্ত সম্পর্কে প্রশংসা করে তৃণমূলের মনে জোরালো সন্দেহ প্রবেশ করিয়ে দিলেন বঙ্গ বিজেপির হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়।

বস্তুত, তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধাননগর পৌরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্ত বাড়িতে হঠাৎই এক সন্ধ্যেবেলায় চলে যান বিজেপি নেতা মুকুল রায়। আর তারপরই সেখান থেকে বেরিয়ে গোটা ঘটনাটিকে সৌজন্য সাক্ষাৎ বলে উল্লেখ করেন তিনি। তবে এরপর থেকেই সব্যসাচী দত্তের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা তৈরি হতে থাকে বিভিন্ন মহলে।

অনেকেই দাবি করেন যে, এবার হয়তো দাদা মুকুল রায়ের হাত ধরে ভাই সব্যসাচী দত্ত তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করবেন। কিন্তু প্রথম থেকেই তৃনমূলেই আছেন এবং তৃনমূলেই থাকবেন বলে জানিয়ে দেন বিধাননগর পৌরসভার মেয়র। তবে বিভিন্ন সময় সব্যসাচী দত্তের বিভিন্ন মন্তব্য তৃণমূলকে প্রবল অস্বস্তিতে ফেলেছে।

আর সম্প্রতি বিদ্যুৎভবনে সব্যসাচী দত্ত অংশগ্রহণ করে রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করে তার দলকেই কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলেন। আর তারপরই সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তৃণমূলভবনে বিধাননগর পৌরসভার কাউন্সিলরদের নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ডাকেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব।ফলে সেই বৈঠকে যখন তোপসিয়ার তৃণমূল ভবনের জোর প্রস্তুতি চলছে, ঠিক তখনই এই সব্যসাচী দত্ত সম্পর্কে বিস্ফোরক মন্তব্য করে জল্পনা বাড়িয়ে দিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, আজ রাজ্য বিজেপির রণকৌশল ঠিক করতে কলকাতার আইসিসিআর অডিটোরিয়ামে বিজেপি রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা একটি বৈঠকে বসেছিলেন। আর সেই বৈঠক থেকে বেরিয়েই সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মুকুল রায় বলেন, “বিগত লোকসভা নির্বাচনে সব্যসাচী আমাদের পক্ষে ভালো কাজ করেছে।”

প্রথমে সাংবাদিকরাও এই কথা শুনে কিছুটা হতভম্ব হয়ে গেলে পরে ফের এই ব্যাপারে মুকুল রায়কে প্রশ্ন করায় তিনি বলেন, “আসলে বিগত লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের অনেক বিধায়ক আমাদের পক্ষে কাজ করেছে। আর সেজন্যই তো আমরা 121 টা বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছি।”

বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, দল ভাঙ্গানোর কাজে বরাবরই সিদ্ধহস্ত বঙ্গ বিজেপির চাণক্য মুকুল রায়। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসার পর থেকেই বিভিন্ন বিধায়কের তার সাথে যোগাযোগ রয়েছে বলে তৃণমূলের অন্দরের ফাটলকে ক্রমশ চওড়া করেছিলেন তিনি।

আর বিধাননগর পৌরসভার মেয়র তথা তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে যখন তৃণমূল বড় কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে, ঠিক তখনই সব্যসাচী গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে ভালো কাজ করেছে বলে তৃণমূলের মনে আরও প্রবলভাবে সন্দেহ প্রবেশ করিয়ে দিলেন কৌশলী মুকুল রায় বলে মনে করছে পর্যবেক্ষকদের একাংশ।

কিন্তু যদি বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের এহেন দাবি সত্যি হয়, তাহলে তৃণমূলের পক্ষে তাদের অনেক বিধায়ককে বিশ্বাস করা যে এখন অত্যন্ত কষ্টকর, তা নিয়ে জোরালো আলোচনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতির অন্দরমহলে। সব মিলিয়ে সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে তৃণমূলের অন্দরে বড়সড় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বিধাননগরের মেয়র তথা এই হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক সম্পর্কে মুকুল রায়ের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এখন তৃণমূল ঠিক কী সিদ্ধান্ত নেয়, সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!