এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > সবং উপনির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে বিশেষ ব্যবস্থা নির্বাচন কমিশনের

সবং উপনির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে বিশেষ ব্যবস্থা নির্বাচন কমিশনের

রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের সরগরম আবহাওয়ার মাঝে মৃদু বেগে বইছে সবং উপ নির্বাচন। এই মৃদু হাওয়া যেন ভয়ানক রূপ না নেই সেদিকে নজরদারি রাখতে কোমর বেঁধে নেমেছে নির্বাচন কমিশন। অবাধ ও শান্তিপূর্ণ ভোট করতে যাবতীয় ব্যাবস্থা নেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যে এমনটাই খবর নিবার্চন কমিশন সূত্রে। ৩০৬টি বুথের মধ্যে ১৩৬টি বুথকে উত্তেজনাপ্রবন হিসাবে চিহ্নিত করে কোথায় কত বাহিনী থাকবে, তা প্রাথমিকভাবে ঠিক হয়ে গিয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুরের সীমানা এলাকাবর্তী এই কেন্দ্রে জোর দেওয়া হচ্ছে কড়া নিরাপত্তা বাবস্থাতেও।
ভোটের দিন সবংয়ের সীমানা এলাকা সিল করে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।
পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, ৩০থেকে ৫০টির মতো বুথ থেকে ওয়েব কাস্টিং করা হবে, যার মাধ্যমে বুথের ভিতরকার চিত্র সরাসরি কমিশনের কর্তারা বসে দেখতে পাবেন। একশোর কাছাকাছি বুথে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হবে আর তা নজর রাখার জন্য একটি সেলও রয়েছে। ৩০৬টি বুথেই থাকবেন একজন করে মাইক্রো অবজারভার। ‘লাইট মনিটরিং অব সেনসেটিভ এরিয়া’ বা উত্তেজনাপ্রবন এলাকাগুলোর উপর নজর রাখতে ক্যামেরা লাগানো একটি গাড়িও থাকছে। কমিশনের কর্তাদের নির্দেশে নির্বাচনের দিন এই গাড়ি বিভিন্ন জায়গায় যাবে। ইতিমধ্যেই সবংয়ে রুটমার্চ শুরু করেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। জেলা প্রশাসনের এক কর্তা জানান, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করতে যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, সবং বিধানসভা উপনির্বাচনে আট কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকতে পারে, এর মধ্যে চার কোম্পানি সিআরপিএফ, চার কোম্পানি এসএবি। একটি কোম্পানিতে ৭২জন করে জওয়ান থাকছেন। প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, মাইক্রো অবজারভার ধরে সবং কেন্দ্রের উপনির্বাচনে মোট ১৮৩৬জন ভোটকর্মী থাকছেন। তাঁদের জন্যেও প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা কমিশনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় ১০৬০ জন পুলিশ কর্মী থাকবেন। উল্লেখ্য, ২০১৬ এর বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে জেলায় একমাত্র সবং কেন্দ্রেই রাজনৈতিক সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু হয়, আর তাই এবারের উপনির্বাচন নিরাপত্তার দিক থেকে নিশ্ছিদ্র করতে মরিয়া প্রশাসন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!