এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শাসকদলের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ও পুনঃনির্বাচনের দাবিতে এবার ধারণায় বসতে চলেছেন বিজেপি প্রার্থী

শাসকদলের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ও পুনঃনির্বাচনের দাবিতে এবার ধারণায় বসতে চলেছেন বিজেপি প্রার্থী

আজ পঞ্চম দফার ভোট গ্রহণ চলছে আর সকল থেকে ভোট শুরু হতেই রাজ্যের একের পর এক কেন্দ্রে অশান্তি হতে দেখা যায়। বনগাঁ ,বারাকপুর ,তারপর হুগলী লোকসভা কেন্দ্রের পরিস্থিতি ক্রমশ উতপ্ত হয়েছে।

এদিকে আজ সকাল থেকেই উত্তপ্ত হুগলির ধনেখালি।হুগলী লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী লকেট চ্যাটার্জী অভিযোগ তুলছেন যে তাঁর কেন্দ্রের প্রায় ১০০ তা বুথে ছাপ্পা হয়েছে। শুধু তাই নয় আজ ধনেখালির মহদিপুরে ১৫৯ নম্বর বুথে তিনি ঢোকার পর চাপ্পার অভিযোগ তোলেন।

পাশাপাশি তাঁর দাবি অনুযায়ী একজন ব্যাক্তিকে ছাপ্পা দেওয়ায় হাতেনাতে ধরেন ও ধমকান। অন্যদিকে প্রিজাইডিং অফিসারকেও এই নিয়ে ধমক দেন। আর এই ফাঁকেই ওই বুথের ভেতরে কেউ একজন ঢুকে ইভিএম ভেঙে দেয়। বন্ধ হয়ে যায় ভোটগ্রহণ। তৃণমূলের দাবি বিজেপি প্রার্থীর ইসারাতেই এই কাজ করা হয়েছে আর এই কাজ করেছে বিজেপি প্রার্থী। অন্যদিকে বিজেপির অভিযোগ এই কাজ তৃণমূল করেছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

আর এর পর তৃণমূল কর্মীদের সাথে তাঁর বচসা বাঁধে।এদিকে এই নিয়ে বিজেপির আরো অভিযোগ এই যে, শাসকদলের কর্মীরা সেখানে ভোটকর্মীরা খাওয়াচ্ছিলেন। আর সেই ফাঁকে দেদার ছাপ্পাভোট চালাচ্ছিল শাসকদলের বাকি কর্মীরা।

তাদের দাবি এই ঘটনারই প্রতিবাদ করেন লকেট চ্যাটার্জী। ভোটকর্মীদের বলেন, ভোটের কাজে তাঁদের ডাকা হয়েছে। আর তাঁরা ‘মাংস-ভাত খাচ্ছেন’? বিজেপির অভিযোগ, এরপরই মারমুখী হয়ে ওঠেন তৃণমূলের কর্মীরা। তাঁদের নেত্রীর উপর হামলা চালানো হয়। তাঁর গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। ভেঙে দেওয়া হয় গাড়ির কাচ। তাঁর গায়েও হাত তোলা হয় বলে অভিযোগ।

এই ঘটনার পর তিনি ধনেখালি থানাতে যান এবং সেখানে গিয়ে শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানোর পাশাপাশি পান নির্বাচনের দাবি জানান।
সাথেই এদিন তিনি এও বলেছেন, ঘটনার প্রতিবাদে জেলাশাসকের অফিসে ধরনায় বসবেন।

যদিও শাসকদল একথা মানতে নারাজ। তাদের অভিযোগ, বিজেপি বুথে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। ইভিএম ভেঙে ফেলে তারা। লকেট চট্টোপাধ্যায়ও তাঁদের সঙ্গে ছিলেন। এই ঘটনার বিরোধিতা করে তারা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!