এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ক্রমশ উত্তপ্ত হচ্ছে মানসগড়,এবার প্রকাশ্যে এল বোমাবাজির ঘটনা

শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ক্রমশ উত্তপ্ত হচ্ছে মানসগড়,এবার প্রকাশ্যে এল বোমাবাজির ঘটনা

Priyo Bandhu Media

কখনো যুব বনাম তৃণমূলের পুরাতন কর্মী,কখনো আবার তৃণমূলের আদি বনাম আদি কর্মীদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের খবর প্রকাশ্যে আসছে।লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ যতোই এগিয়ে আসছে ততোই যেন তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আরো মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া নিদানের  পরেও এ রোগের উপসম হচ্ছে না। তীব্র অস্বস্তিতে রাজ্যের শাসকদল। তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে অগ্নিগর্ভ অবস্থা সবং-এর দশগ্রাম পঞ্চায়েতের মসাগ্রাম ও দেহাটিতে। জেল থেকে ছাড়া পাওয়া এক দলীয় কর্মীর বাড়ি ফেরাকে কেন্দ্র করে গন্ডোগোলের সূত্রপাত। পরিস্থিতি এতোটাই বেগতিক হয়ে যায় যে বোমাবাজি,লুটপাটও চলতে থাকে। গোটা ঘটনাই পুলিশকে জানানো হয়েছে বলে জানান,তৃণমূলের ব্লক সভাপতি প্রভাত মাইতি। তবে কোনো এফআইআর দায়ের করা হয়নি বলেই জানালেন খড়গপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওয়াই রঘুবংশী। ঘটনাটির তদন্ত চলছে।

জেলা সূত্রের খবর থেকে জানা গিয়েছে,কিছুদিন আগে গ্রেফতার হওয়া তৃণমূলের দলীয় কর্মী শক্তিপদ খাটুয়া জেল থেকে ছাড়া পান। গ্রামে ফেরার পর তৃণমূলের দলীয় কর্মীদের একাংশ মিছিল করে। এবং এর জেরেই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ঝামেলা বাঁধে। এরপর স্থানীয় নেতা সীতাংশু মাজির বাড়িতে বোমাবাজি করা হয়। সমানতালে চলে লুটপাট ও ভাঙচুর। ৫০ জন মতো বোমা,বন্দুক নিয়ে বাইকে করে এসে সন্ত্রাস চালায় সীতাংশু বাবুর বাড়িতে। প্রাণভয়ে লুকিয়ে পড়তে হয় সীতাংশু মাঝিকে। এমনটাই অভিযোগে জানালেন সীতাংশুবাবুর দাদা সুধাংশু মাজি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে,যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই শক্তিপদ খাটুয়ার দাদা গুরুপদ বাবু বলেন, তার ভাই শক্তিপদ জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার আনন্দে সবাই মিছিল করে তাকে বাড়ি ফিরিয়ে আনতে গিয়েছিলেন। এই সময় নাকি মিছিলে সীতাংশু বাবু এবং তাঁর দলবলেরা মিছিলকে লক্ষ্য করে বোমাবাজি শুরু করে। তারপর দুপক্ষের বিবাদ শুরু হয়। শক্তিপদ খাটুয়াদের দলবলেরা তাড়া করলে তারা পালিয়ে যায়। তবে দেহাটির কাছে তাদের কয়েকজনকে আটকে রাখা হয়,মারধোর করা হয় বলে অভিযোগে জানান গুরুপদ বাবু। পরে খবর পেয়ে ছাড়িয়ে আনতে যাওয়া হয়। গিয়ে দেখা যায় ওরা নিজেরাই নিজেদের ঘর ভাঙচুর করেছে। পরের দিন সকালে মিথ্যা প্রচার করা হয় যে শক্তিপদ খাটুয়ার দলবলেরা ঘর ভাঙচুর করেছে।

এ প্রসঙ্গে জেলা পরিষদের সদস্য অমূল্য মাইতি বলেন,প্রায় চার মাস ধরে এই সন্ত্রাসমূলক কর্মকান্ড ঘটিয়ে চলেছে যুব তৃণমূলের সদস্যরা। বিষয়টি নিয়ে বারবার অভিযোগ জানানো হয়েছে রাজ্য ও জেলা সভাপতির কাছে। পুলিশপ্রশাসনের কাছেও অভিযোগ রয়েছে। তবে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি আবুকালাম বক্সের দাবী সীতাংশু মাজী এবং শক্তিপদ খাতুয়া দুজনই তৃণমূলের পুরানো কর্মী। কিন্তু অমূল্যবাবু বরাবরই সবং এ কোনো দলীয় গন্ডোগোল হলে নব্য বনাম আদি দের বিরোধ বলে চালিয়ে দেন। এই ঘটনার নেপথ্যে নব্য-আদি বিরোধ নেই বলেই সাফ কথায় জানালেন যুব কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!