এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি ও ‘কাটমানির’ অভিযোগ তুলে হ্যান্ডবিল ঘিরে অস্বস্তিতে শাসকদল

কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি ও ‘কাটমানির’ অভিযোগ তুলে হ্যান্ডবিল ঘিরে অস্বস্তিতে শাসকদল

বীরভূমের মুরারই এলাকায় রাস্তায় পড়ে থাকা একটি হ্যান্ডবিল-কে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ালো। ঐ হ্যান্ডবিলে লেখা বয়ানের ভিত্তিতে শাসক দলের কয়েকজন নেতা এবং স্বয়ং মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ আর্থিক দুর্নীতি কাণ্ডে অভিযুক্ত। এখন কারা এই হ্যান্ডবিল ছড়িয়েছে, তা খুঁজে বের করতে পুলিশেরও নাজেহাল দশা। যদিও অভিযুক্ত এইসব নেতারই দাবি এই সব অভিযোগ ভিত্তিহীন মূলতঃ তাঁদের ভাবমূর্তি নষ্ট করতেই কেউ এমন কাজ করেছে। প্রসঙ্গতঃ এর আগেও মুরারই ১ নম্বর ব্লক সভাপতি বিনয় ঘোষ এবং মহিলা তৃণমূলের প্রাক্তন জেলা সভানেত্রী ফাল্গুনী সিংহর বিরুদ্ধে কয়েকবার হ্যান্ডবিল ছড়ানো হয়েছিল। হলুদ কাগজে ছাপানো ঐ হ্যান্ড বিলে একপ্রকার অভিযোগ করেই বলা হয়েছে , “ব্লক সভাপতি বিনয় ঘোষ পাঁচ বছরে একচ্ছত্র আধিপত্য চালিয়ে কয়েক কোটি টাকা রোজগার করেছেন। তিনি মুরারই ১ নম্বর ব্লকের টেন্ডারে কোটি কোটি টাকা কাটমানি নিয়েছেন। সেই টাকা মত্‍স্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহের কাকা বিশ্বজিত্‍ সিংহের মাধ্যমে মন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। ওই টাকা দিয়ে মন্ত্রী নিজের পছন্দের লোকেদের প্রার্থীদের মনোনীত করেছিলেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

 

তাঁদেরই আবার প্রধান ও উপপ্রধান পদে বসানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন ।” একই সাথে ঐ হ্যান্ডবিলে বলা হয়েছে “বিনয় ঘোষের নির্দেশে লালুর হাত ধরে মন্ত্রীর বাড়িতে চারটি এসি মেশিন পাঠানো হয়েছে।” এ। ই হ্যান্ডবিলকে আদতেও গুরুত্ব দিতে নারাজ ব্লক সভাপতি বিনয় ঘোষ বললেন, “যারা অন্য দল থেকে সদ্য আমাদের সঙ্গে এসেছেন, তাঁরাই এসব করেছেন। দলের গুরুত্বপূর্ণ কেউ হলে তাঁরা জেলা কমিটিতে অভিযোগ জানাতেন। এভাবে দলের কেচ্ছা ছড়াতেন না। আর চন্দ্রনাথ সিংহ রাজ্যের মন্ত্রী। ওঁর মাধ্যমে মুরারইয়ের মানুষ অনেক উপকৃত হয়েছেন। উনি এলাকার উন্নয়নের চেষ্টা করেন। যাঁরা এসব অপপ্রচার করছেন আমরা তাদের চিহ্নিত করতে পেরেছি। তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” অন্যদিকে মুরারইয়ের বিধায়ক আবদুর রহমান এই প্রসঙ্গে নিজের প্রতিক্রয়া জানিয়ে বললেন, “বিধায়ক হিসাবে আমার যতটা গুরুত্ব পাওয়ার কথা ততটাই পাচ্ছি। মুরারই সম্প্রীতির নজির রাজ্যের কাছে। কেউ কেউ দলে সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা করছেন।হ্যান্ডবিল ছড়ানোর ছবি সিসিটিভি-তে ধরা পড়েছে। সেই ফুটেজ থেকে অভিযুক্তকে চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!