এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > বিজেপির উপর চাপ বাড়াতে পাল্টা কমিশনে গিয়ে ‘চাপের রাজনীতি’ শাসকদলের

বিজেপির উপর চাপ বাড়াতে পাল্টা কমিশনে গিয়ে ‘চাপের রাজনীতি’ শাসকদলের

বাংলায় আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচন উপলক্ষে ক্রমশ চড়ছে উষ্ণতার পারদ। একদিকে রাজ্যের অঘোষিত প্রধান বিরোধী দল যেমন অভিযোগ আনছে যে তাদের নেতা-কর্মীদের উপর কার্যত শাসকদলের ‘সন্ত্রাস’ চলছে, অন্যদিকে রাজ্যপাল-নির্বাচন কমিশন-সুপ্রিম কোর্ট – সব জায়গায় গিয়ে শাসকদলের এই সন্ত্রাস প্রমানে মরিয়া হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের অভিযোগ নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের অফিসে গেলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, বিদ্যুত্‍ মন্ত্রী শোভনদেব চট্টাপাধ্যায়, তাপস রায় প্রমুখ তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষনেতারা। এদিনের বৈঠক শুরু হয় দুপুর দুটো থেকে। বৈঠক সমাপ্তির পর তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বললেন, বিজেপি সন্ত্রাসের অভিযোগ করছে। কিন্তু জেলা পরিষদে বেশিরভাগ মনোনয়ন জমা পড়েছে বিজেপির। তাঁর দাবি একদিকে বিজেপি সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছে, অন্যদিকে রাজ্যে গোলমাল পাকিয়ে কমিশনের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। রাজ্যে গোলমাল করার দরকার নেই তৃণমূলের। উন্নয়নের কাজ দেখেই মানুষ তাদের ভোট দেবেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠির সাথে সাক্ষাৎ করে রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি ও রাজনীতি বিষয়ে কিছু তথ্য দিয়েছেন, অসমর্থিত সূত্রের খবর পঞ্চায়েত নির্বাচন উপলক্ষে রাজ্যজুড়ে শাসকদলের ‘সন্ত্রাস’ প্রসঙ্গই উল্লিখিত সেই তথ্যে। সেই তথ্যের বিষয়বস্তু সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এছাড়াও রাজ্যপালের সাথে বৈঠকে পর দিলীপ বাবু সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে কমিশনারকে তলব করতে চলেছেন রাজ্যপাল। এখানেই তৃণমূল কংগ্রেস সংশয় প্রকাশ করে জানতে চেয়েছে যে আগে থেকে কিভাবে এই খবর দিলীপ ঘোষ জানলেন? রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের এই সন্দেহজনক কাজকর্মের বিষয়ে আলোকপাত করতেই এদিন রাজ্য নির্বাচন কমিশনের অফিসে গেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব বলে সূত্রের খবর।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!