এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > পুত্র হারানোর শোক বুকে চেপেই ভারতমায়ের সুরক্ষায় নিজের অপর পুত্রকেও উৎসর্গ শহীদ রতন ঠাকুরের বাবার

পুত্র হারানোর শোক বুকে চেপেই ভারতমায়ের সুরক্ষায় নিজের অপর পুত্রকেও উৎসর্গ শহীদ রতন ঠাকুরের বাবার


কাশ্মীরের জঙ্গি হামলায় ছেলের মৃত্যুর খবরের শোক বুকে চেপে রেখেই বহিরঙ্গে বজ্রকঠিন মনোভাবই দেখাচ্ছেন শহিদ সিআরপিএফ জওয়ান রতন ঠাকুরের বাবা। ছেলের প্রাণের থেকে এখনো দেশের সুরক্ষাকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন তিনি। বললেন, দেশের সেবার জন্যে তাঁর অন্য ছেলেকেও উৎসর্গ করতে দুবার ভাববেন না তিনি। বিহারের ভাগলপুরের বাড়িতে বসেই অশ্রুসিক্ত চোখে পুলওয়ামার মর্মান্তিক সন্ত্রাসজনক ঘটনার জন্য পাকিস্তানকে উপযুক্ত জবাব দেওয়ার দাবী করেছেন তিনি। পাশাপাশি নিজের অন্য ছেলেকেও দেশের সুরক্ষার জন্য এগিয়ে দেওয়ার কথা বলে নিজের বীরত্বেরই পরিচয় দিলেন নিহত জওয়ানের পিতা।

বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মীর যাওয়ার পথে পুলওয়ামার অবন্তীপোরায় সিআরপিএফের কনভয় পাকিস্তান মদদ-পুষ্ট জইশ-ই মহম্মদ জঙ্গী সংগঠনের হামলার শিকার হয়। হামলায় নিহত ৪৯ জন জওয়ানদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন বিহারের ভাগলপুরের বাসিন্দা রতন ঠাকুর। সন্ত্রাসবাদ ছেলেকে কেড়ে নিলেও মনোবল ভাঙতে পারেনি ভাগলপুরের নিহত শহীদের বাবার। উল্টে ছেলের জন্য গর্ব প্রকাশ করল দ্বিধাহীন পিতার কন্ঠ এবং অন্য ছেলেকেও দেশ সুরক্ষার কাজে এগিয়ে দেওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে তিনি বললেন, ‘আমার এক ছেলে দেশমাতৃকার পায়ে নিজের জীবন উত্‍সর্গ করেছে। দরকারে আমার অন্য ছেলেও দেশের জন্য আত্মবলিদান দেবে।’

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

পুলওয়ামার মর্মান্তিক হামলার ঘটনায় শোকস্তব্ধ গোটা দেশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় যেমন প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে তেমনি দেশের বিভিন্ন প্রান্ত দেশবাসী সরব হয়ে প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন। ঘটনার সমালোচনা করে সোশ্যাল মিডিয়ার নিহত জওয়ানদের পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছেন হেভিওয়েট নেতা-মন্ত্রীরা। ঘটনার কড়া নিন্দা করে একটি কড়া বিবৃতি প্রকাশ করে পাকিস্তানকে হুঁসিয়ারী দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তাতে সাফ বলা হয়েছে,পাকিস্তানের মাটি থেকে সন্ত্রাসবাদীদের মদত দেওয়া বন্ধ না হলে কড়া মূল চোকাতে হবে ইসলামাবাদকে।

যদিও পাক প্রশাসন এই ঘটনার দায় অস্বীকার করেছে। তবে পাকিস্তানের কথায় যে কারো বিশ্বাস নেই তা আজ স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে আমেরিকার হুঁসিয়ারীতে। পুলওয়ামার ঘটনার তীব্র নিন্দা করে পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসের আতুঁড়ঘর’ হিসাবে ব্যাখ্যা করেছে ওয়াশিংটন। পাশাপাশি, ভারত সরকারের মতোই পাকিস্তানের মাটি থেকে জঙ্গিদের মদত দেওয়া এখনই বন্ধ না করলে পরিনাম খারাপ হবে বলেই হুমকি দেওয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে, ভারতমায়ের সেবায় তরতাজা ৪৯ টি প্রাণের এইভাবে বলিদান কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না গোটা দেশবাসী। সবার মনেই একটাই দাবী – আমাদের ভায়েদের রক্তের দাম যেন বৃথা না যায়, হত্যাকারীদের কড়া জবাব দিতেই হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!