এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > রানিগঞ্জের ‘অগ্নিগর্ভ’ পরিস্থিতি নিয়ে ‘নতুন তত্ত্ব’ সামনে এল স্থানীয়দের হাত ধরে

রানিগঞ্জের ‘অগ্নিগর্ভ’ পরিস্থিতি নিয়ে ‘নতুন তত্ত্ব’ সামনে এল স্থানীয়দের হাত ধরে

রামনবমীর দিন কয়েক আগে থেকে ঝাড়খণ্ডের নম্বর প্লেট লাগানো প্রায় কয়েকশো বাইক দাপিয়ে বেড়ায় রানীগঞ্জ আসানসোল। কোলিয়ারি এলাকায় প্রভাব বিস্তারের রাজনীতির কারণে এই গোলমাল তৈরী করা হয়েছে বলে মনে করছে স্থানীয় বাসিন্দারা ও পুলিশ প্রশাসন। বিষয়টি নিয়ে সক্রিয় হয়েছে প্রশাসন। এই গোলযোগের সাথে যুক্ত প্রায় ১৫০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে খবর। এদিন জাহাঙ্গীর নগরের এক ইমাম বলেন, ”কোনওদিন এই এলাকায় গোলমাল হয়নি। সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় ছিল। কিন্তু ২৪ তারিখ রাত থেকেই ঝাড়খণ্ডের নম্বরপ্লেট লাগানো অসংখ্য বাইক এলাকায় ঢুকে স্থানীয় বাসিন্দাদের একটি অংশের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতে থাকে। অশান্তি পাকানোর লক্ষ্যে প্ররোচনা দিতে থাকে। অল্পবয়সি যুবকদের কয়েকজন ওই ফাঁদে পা দেয়।”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

বিশেষ করে ক্ষতিগ্রস্ত হয় চাঁদমারি, শ্রীনগর, আমবাগান, জাহাঙ্গির মহল্লা, ওকে রোডের মতো এলাকা। জানা গেছে এই সমস্ত এলাকায় প্রায় ২০, ২৫ অথবা ৫০ জন মতো বহিরাগত প্রচারক ছোট ছোট বৈঠক করেন। চাঁদমারীর স্থানীয় বাসিন্দাদের কথায়, ”রামনবমীকে কেন্দ্র করেই ওই বৈঠকগুলি হচ্ছিল। কিন্তু প্রচারকেরা বিভিন্ন ভাবে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছিল। এ রকম বৈঠক আগেও হয়েছে। সেখান থেকে এত বড় ব্যাপার হবে, তা বোঝা যায়নি।” এদিন এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, ”কেবলমাত্র বাইরে থেকে আসা লোকজন এত বড় অশান্তি করেছে, এটা ঠিক নয়। আসলে জমি তৈরি ছিলই। কিন্তু বহিরাগতদের ইন্ধন বড় ভূমিকা নিয়েছে। তাছাড়া কোলিয়ারির নিয়ন্ত্রণের লড়াইও অন্যতম কারণ।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!