এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রামনবমী হনূমান জয়ন্তী অনেক হলো এবার বাঙালি আরাধনায় বিজেপি

রামনবমী হনূমান জয়ন্তী অনেক হলো এবার বাঙালি আরাধনায় বিজেপি

রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং নজরুল ইসলামের প্রতি আনুগত্যকে টক্কর দিতে  বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের স্মরনাপন্ন হলো গেরুয়া শিবির। গেরুয়া শিবিরের মতে কবিগুরু আর বিদ্রোহী কবি কে নিয়ে রাজ্যের শাসক দল মাতামাতি করলেও বন্দেমারতমের প্রণেতা নিজের জন্মভূমিতে সর্বদা উপেক্ষিত। সেই দিক বিবেচনা করেই বঙ্কিম চন্দ্রকে তাঁর প্রাপ্য সম্মান দিতে কার্যকরী ভূমিকা গ্রহণ করতে তৎপর হয়ে উঠেছে বিজেপি নেতৃত্ব। চলতি মাসের ২৬ এবং ২৭ তারিখে বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ’র রাজ্য সফরের সম্ভবনা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

আর এই সময়েই বঙ্কিমচন্দ্রের উপর বিশেষ সেমিনারে বক্তব্য রাখার পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর। বিজেপি শিবির সূত্রে জানা যাচ্ছে বিশ্ব কবি সর্বজনের কাছে আরাধ্য , বিদ্রোহী কবি হিন্দু-মুসলমান একতার প্রতীক। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তাঁর কোনো বক্তৃতাই এঁদের লাইন উদ্ধৃত না করে করেন না। রাজ্যের শাসক দলের সব স্তরের নেতাই তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী মাননীয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অনুসরণ করে এই দুই বিশিষ্ট কবির নাম স্মরণ করে  বক্তব্য রাখছেন এমন দেখা যাচ্ছে সাম্প্রতিক সময়ে। এত কিছুর মধ্যে কোনো স্থান নেই বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের। এক বিজেপি নেতা এই প্রসঙ্গে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বললেন, ” পাড়ায় পাড়ায় রবীন্দ্রনাথ, নজরুলের মুর্তি। আর নীচে করে লেখা আছে তৃণমূলের কাউন্সিলারের নাম। পার্ক থেকে কলতলা, সব জায়গায় রবীন্দ্র-নজরুল। কবিদের কী সম্মাল জানানো হচ্ছে বুঝতে পারলেন? বিজেপি যদি বঙ্কিম-সেমিনার করে, তাঁকে উপযুক্ত সম্মান জানাতেই তা করা হবে। রাজনৈতিক ফায়দা লুঠতে নয়।” একই সাথে কবি গুরু সম্পর্কে গেরুয়া শিবিরের মতামত, ”রবীন্দ্রনাথ হিন্দুত্বকে ব্যাখ্যা করেছেন। বলেছেন, দেশের মুসলমান এবং খ্রিষ্টান আদতে হিন্দু। পরবর্তীকালে তাঁরা ধর্ম পরিবর্তন করেছিলেন।” এখন অমিত শাহ’র রাজ্য সফরে কী হতে চলেছে রাজ্যের ভবিষ্যত কে দিকে তাকিয়ে গোটা রাজ্যবাসী।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!