এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাংলাই পথ দেখায় – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব কার্যত মেনে নিলেন রাহুল গান্ধী

বাংলাই পথ দেখায় – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব কার্যত মেনে নিলেন রাহুল গান্ধী


কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে উৎখাত করে দেশে নতুন সরকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্নকে সামনে রেখে আজ কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের মহা জনসমাবেশ। রাজ্যের কংগ্রেস নেতারা যতই তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দাগুন বা তৃণমূল রাজ্যের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করছেন বলে অভিযোগ জানান – কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধী আগেই বার্তা দিয়েছিলেন, তৃণমূল নেত্রীর এই লড়াইয়ে তিনি পাশে আছেন।

তাই তিনি আগেই জানিয়েছিলেন তিনি নিজে তৃণমূলের ব্রিগেডে উপস্থিত থাকতে না পারলেও, তাঁর দূত হিসাবে তৃণমূলের ব্রিগেডে উপস্থিত থাকবেন লোকসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে এবং দলীয় মুখপাত্র অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি। কিন্তু, এসব কিছুকে ছাপিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ইউনাইটেড ইন্ডিয়া র‌্যালিকে সমর্থন জানিয়ে এবার রাহুল গান্ধী একটি চিঠিই লিখে ফেললেন। যে চিঠিতে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তিনি ‘দিদি’ বলেই সম্বোধন করেছেন।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

রাহুল গান্ধীর লেখা চিঠির মূল বক্তব্য হল, মমতাদি’র এই সভার প্রতি আমার সমর্থন রইল। ঐক্যের ওই মঞ্চ থেকে আমরা ঐক্যবদ্ধ ভারতের একটা বার্তা গোটা দেশের কাছে পৌঁছে দিতে পারব, এই আশা রাখি। মোদি বিরোধী এই জোটের মহাসমাবেশ যে মাটিতে হচ্ছে, সেই বাংলার মহান মানুষদের প্রশংসা করছি। যাঁরা আমাদের দেশের আদর্শকে রক্ষার জন্য ঐতিহাসিকভাবেই চিরকাল প্রথম সারিতেই রয়েছেন। বাংলাই পথ দেখায়, পরিবর্তনের সূচনা হোক এখান থেকেই।

নরেন্দ্র মোদির বিরোধিতায় তৃণমূল নেত্রী প্রথম থেকেই সবচেয়ে এগিয়ে থেকেছেন। আর তারফলে তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের মনে দুরন্ত আশা ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর নাম হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাই বাংলার জনগণকে রাজ্যের ৪২ টি আসনেই তৃণমূল কংগ্রেসকে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা। কিন্তু, এতদিন সবার মনে প্রশ্ন ছিল – বিজেপি সরে গেলে প্রধানমন্ত্রীর কুর্শি কি কংগ্রেসের হাতে যাবে? কিন্তু মোদী-বিরোধিতায় তৃণমূল কংগ্রেসকে এইভাবে খোলা সমর্থন দিয়ে – রাহুল গান্ধী কার্যত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বকেই মান্যতা দিলেন বলে অভিমত রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!