এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এখনই গ্রেপ্তার নয় রাজীব কুমারকে, তবে খুব কি নিশ্চিন্ত থাকতে পারবেন পুলিশ কমিশনার?

এখনই গ্রেপ্তার নয় রাজীব কুমারকে, তবে খুব কি নিশ্চিন্ত থাকতে পারবেন পুলিশ কমিশনার?


আজ সুপ্রিম কোর্টে রাজীব কুমারকে সিবিআই জেরা করা নিয়ে মামলার পরিপ্রেক্ষিতে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দিক উঠে এল। প্রথমত, যে জল্পনা গত শুক্রবার থেকেই আকাশে-বাতাসে ঘুরছিল তাতে জল ঢেলে সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট জানিয়ে দিল এখনই গ্রেফতার করা যাবে না রাজীব কুমারকে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, কার্যত এটা বড় ‘ওয়ার্নিং’ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির কাছে – ‘আপাতত’ বা ‘এখনই’ যেমন গ্রেপ্তারির ভয় নেই – তেমনই, যদি আদালতের নির্দেশ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি না মানেন তাহলে ‘ভবিষ্যতে’ গ্রেপ্তারির সম্ভবনা থেকেই গেল।

দ্বিতীয়ত, রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে যেটা সবথেকে মারাত্মক বা পুলিশ কমিশনারের বিরুদ্ধে গেল, তা হল সিবিআই কিন্তু আদালতে দাঁড়িয়েই বেশ কিছু বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে এল। যেমন – রাজীব কুমারের নেতৃত্বাধীন সিট যে তদন্ত রিপোর্ট সিবিআইয়ের হাতে তুলে দিয়েছিল তা অসম্পূর্ন। এছাড়াও নাকি অনেক বিকৃত (ট্যাম্পার্ড) কল রেকর্ড দেওয়া হয়েছে, সুদীপ্ত সেনের কম্পিউটার থেকে পাওয়া অনেক তথ্য উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সিটের নেতৃত্বে। অর্থাৎ, সিবিআই যে অভিযোগগুলি করছে – তা সত্যি হলে, এককথায় তা সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সিবিআই যে তদন্ত করছিল (সরকারি কাজ) তা প্রভাবিত করা ও সেই তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগ।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর ভারতীয় সংবিধান অনুযায়ী, এই কাজগুলি সম্পূর্ণ বেআইনি ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। অর্থাৎ, সবমিলিয়ে রাজীব কুমারের বিরুদ্ধেই তদন্ত শুরু করার পথ খুলে ফেলল সিবিআই। মানে প্রাথমিকভাবে সারদা তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর সহযোগিতা নেওয়া হলেও, পরবর্তীকালে কিন্তু সেই তদন্ত প্রভাবিত করার অভিযোগে তাঁকে তদন্তের মুখোমুখি হতে হবে। আর সেই তদন্তে সিবিআইয়ের দাবির সত্যতা প্রমাণিত হলে, সেক্ষত্রে কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারির কথা উঠতেই পারে।

এছাড়াও, রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ হল, আদালতের পর্যবেক্ষন – সিবিআই যদি মনে করে রাজীব কুমারকে সিবিআই তদন্তের মুখোমুখি হতেই হবে এবং তদন্তে সিবিআইকে পূর্ন সহযোগিতা করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজীব কুমারকে। অর্থাৎ, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী যে দাবি তুলে ধর্নায় বসেছিলেন যে, এটা নরেন্দ্র মোদির কারসাজিতে সিবিআইয়ের চক্রান্ত। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকায় রাজীব কুমারকে সিবিআই আর জেরাই করতে পারবে না – তা কার্যত আর টিকল না। সারদা তদন্তের প্রয়োজনে রাজীব কুমারকে জেরা করার রাস্তা খুলে গেল সিবিআইয়ের কাছে। আর তাই সব মিলিয়ে ‘আপাতত’ গ্রেপ্তারি না হলেও খুব স্বতিতে থাকবেন না পুলিশ কমিশনার বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!