এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কোচবিহারে একগুচ্ছ নতুন প্রকল্পের শুভারম্ভ করলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ

কোচবিহারে একগুচ্ছ নতুন প্রকল্পের শুভারম্ভ করলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ

Priyo Bandhu Media


স্বনির্ভরগোষ্ঠীর উদ্যেশে কল্যাণকর প্রকল্পের উদ্যোগের পর,কোচবিহারে একগুচ্ছ নতুন প্রকল্পের শুভারম্ভ করলেন তৃণমূলের  উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।এদিনের অনুষ্ঠানগুলিতে রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন দপ্তরের সচিব বরুণ রায়, কোচবিহার জেলা পরিষদের সভাধিপতি পুষ্পিতা রায় ডাকুয়া, কোচবিহার পুরসভার পুরপ্রধান ভূষণ সিং।
এদিন তুফানগঞ্জে উল্লারখাওয়া সেতুর শিলান্যাস, কোচবিহার পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ে সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প ও কোচবিহার শহরের নীলকুঠি সিস্টার নিবেদিতা গার্লস হাই স্কুলে সুবর্ণজয়ন্তী বর্ষের তোরণ, বাউন্ডারি ওয়াল ও শৌচালয় ব্লকের কাজের উদ্ভোধন করেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।এদিন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ উল্লারখাওয়া সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে বলেন,স্বাধীনতার পরবর্তী কোনো শাসকদলই উল্লারখাওয়ার সেতু নির্মাণের চিন্তা করেননি, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের শাসিত সরকারের ক্ষমতা হস্তান্তরের সঙ্গে সঙ্গে এর নির্মাণ কার্যে হাত দেওয়া হয়।তিনি আরও জানান যে মাটি পরীক্ষায় ও সেতুর ডিজাইনে কিছু ত্রুটি ধরা পরায় সেতু  নির্মাণ কার্যের বিলম্ব হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে তা খড়্গপুর আইআইটির হাতে।তাদের নির্মিত নতুন ডিজাইনের জন্য উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের পক্ষ থেকে প্রায় ৮ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এই সেতু নির্মাণ কার্য সম্পন্ন হলেই  তুফানগঞ্জ–বক্সিরহাট যুক্ত হবে;উপকৃত হবে নদীর উভয় দিকের ১০ লক্ষ মানুষ।বরাদ্দ হওয়া ৪৪ লক্ষ টাকার দ্বারা  কোচবিহার শহরের নীলকুঠি সিস্টার নিবেদিতা গার্লস হাই স্কুলের সুবর্ণজয়ন্তী তোরণ, বাউন্ডারি ওয়াল ও শৌচালয় ব্লকের কাজের সূচনা করেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।তিনি জানান বিদ্যালয়টি রং করবার জন্য আরও ৬ লক্ষ  টাকা বাড়তি দেবে সরকার। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের আর্থিক সহায়তায় এদিন কোচবিহার পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০০ কিলোওয়াট সৌরশক্তি প্রকল্পের কাজের সূচনাও করেন মন্ত্রী। এছাড়া কোচবিহার পুরসভা পরিচালিত মহাশ্মশান পরিদর্শন করবার সময় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে আরও দুটি বৈদ্যুতিক চুল্লি তৈরি করবার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।এদিন কোচবিহারে আর্ট গ্যালারি গড়তে কোচবিহারের চিত্রশিল্পীদের সঙ্গে কথা বলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের সচিব বরুণ রায় ও আধিকারিকেরা।‌‌
এই সমস্ত প্রকল্পের দ্বারা এলাকার ভালো ভবিষ্যত হবার আশায় সাধারণ বাসিন্দারা যথেষ্ট উৎসাহী।কিন্তু বিরোধী পক্ষের তরফ থেকে এই সকল কার্যের জন্য আসন্ন উপনির্বাচনের কথা উঠছে।রাজনৈতিক মহলের অনেকেই মনে করছে এটা ভোট টানার এক নয়া কৌশল।
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!