এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > বনমহোৎসব সূচনা করলেন মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাত,পুরুলিয়াকে ফিরে পেতে যত কান্ড,কটাক্ষ বিরোধীদের

বনমহোৎসব সূচনা করলেন মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাত,পুরুলিয়াকে ফিরে পেতে যত কান্ড,কটাক্ষ বিরোধীদের

রমরমিয়ে বনমহোৎসবের সূচনা হল পুরুলিয়া জেলায় এবং এটি চলবে ২১ জুলাই অব্দি। উৎসবের দায়িত্ব ছিলেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করলেন পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রী তথা তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা শান্তিরাম মাহাত। অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন সংসদ মৃগাঙ্ক মাহাত, বিধায়ক শক্তিপদ মাহাত এবং জেলা শাসক অলকেশ প্রাসাদ রায়ের মতো বিশিষ্ট জনেরা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

বনমহোৎসবের অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই নমামি গঙ্গা প্রকল্পের শুভ সূচনা হল,এমনটাই জানালেন মুখ্য বনপাল সৌরভ চৌধুরী। অনুষ্ঠান উদ্বোধণ করে শান্তিরাম মাহাতো জানান যে, যেভাবে দ্রুত গতিতে বৃক্ষছেদন হচ্ছে তার জেরে জীববৈচিত্র্যের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত। শিল্পায়নের মাধ্যমে প্রকৃতির ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। তাই বর্তমান জনসমাজকে সচেতন করার লক্ষ্যেই ৭ দিন ব্যাপী বনমহোৎসব এর শুভ সূচনা করা হল। ভবিষ্যত প্রজন্মকে গাছ উপহার দিয়ে যেতে চান রাজ্যের শাসকদল। এমনটাই জানালেন তিনি।

উল্লেখ্য, এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জেলার কোনায় কোনায় যাতে নার্শারির মাধ্যমে চারাগাছ বিতরণ করা হয় সেটাই তদারক করতে হবে এমনটাই জানালেন মৃগাঙ্ক মাহাত। এছাড়া আরো জানালেন যে, এদিনের যে নতুন প্রকল্পের সূচনা হল তার যাতে রূপায়ণ হয় সেটারও ব্যবস্থা করা জরুরি। এছাড়া এ ব্যাপারে সৃষ্টিধর মাহাতোর থেকেও মন্তব্য পাওয়া গেল। জানালেন,প্রতিনিয়ত বৃক্ষ ধ্বংসের মাধ্যমে পৃথিবীর ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। এই ক্ষতি মূল্য দিয়ে বিচার করা যায় না। তাই পুরুলিয়া শহরে বনমহোৎসব পালন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ওদিকে জেলা শাসক অলকেশ প্রসাদ রায় জানান যে প্রশাসনের তরফ থেকে ৭৫ লক্ষ গাছের চারা উৎপাদন করা হয়েছে। প্রায় ৬০০ কিমি রাস্তায় গাছ লাগানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধণ নিয়েই ব্যাপক উদ্দীপনা ছিল স্থানীয়দের মধ্যে এমনটাই জানা গেছে জেলা সূত্রের খবর থেকে।এদিকে পুরুলিয়া জেলায় রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের এ ধরণের কর্মকান্ডকে রীতিমতো কটাক্ষ করলেন গেরুয়াশিবির। তাঁদের দাবী পঞ্চায়েত নির্বাচনে পুরুলিয়ায় বিজেপির ভালো ফলই চাপে ফেলেছে রাজ্যসরকারকে।

বিজেপির এই উত্থানকে শত চেষ্টা করেও থামাতে পারেনি শাসকদল। । আর তাই পায়ের তলার মাটি আলগা হচ্ছে দেখেই এই সমস্ত ভণ্ডামি শুরু করছে শাসক দল। তবে যাই করুক বিজেপিকে মানুষ আপন করে নিতে শুরু করেছে আর তাই তাদেরকে কোনোভাবেই পরাস্ত করতে পারবে না তৃণমূল।আর যদি মানুষের ভালোর জন্য এই উৎসব পালিত হয় তাহলে শাসকদলের শুভ বুদ্ধি হয়েছে তাতেই খুশি আমরা কেননা আমাদের মূল লক্ষ্য কেবলমাত্র মানুষের ভালো করা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!