এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > হাজার কর্মী দিয়ে দুর্গা বিসর্জন নিরুপদ্রব রাখার আপ্রান চেষ্টা পুরসভার, তবুও তলিয়ে গেল ১

হাজার কর্মী দিয়ে দুর্গা বিসর্জন নিরুপদ্রব রাখার আপ্রান চেষ্টা পুরসভার, তবুও তলিয়ে গেল ১



উৎসব শেষ। এবার ঘাটগুলিতে চলছে প্রতিমা নিরঞ্জনের পালা। ইতিমধ্যেই দশমীর বিকেল থেকেই হাওড়ার 52 টি ঘাটে শুরু হয়েছে এই প্রতিমা বিসর্জন প্রক্রিয়া। জানা গেছে, গতকাল বিকেল পর্যন্ত প্রায় 2100 প্রতিমা বিসর্জন হয়েছে। আর সবথেকে বেশি প্রতিমা নিরঞ্জন হয়েছে রামকৃষ্নপুর ঘাট, যেখানে শুক্রবার বিকেল থেকেই ছিলেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরুপ রায়, মেয়র পারিষদ সদস্য শ্যামল মিত্র সহ অন্যান্যরা। তবে শুধু রামকৃষ্নপুরই নয়, এদিন উত্তর হাওড়ার ছাতুবাবুর ঘাটেও ছিল প্রতিমা নিরঞ্জনের জন্য উপচে পড়া ভিড়। আর এই গোটা ঘটনার তদারকি করতে প্রথম থেকেই ঘাটের পাড়ে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের ক্রীড়া দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী লক্ষীরতন শুক্লা, মেয়র পারিষদ সদস্য গৌতম চৌধুরী সহ অন্যান্যরা।

জানা যায়, দুর্ঘটনা এড়াতে সিসিটিভি এবং পর্যাপ্ত আলোর ব্যাবস্থা করা হলেও এক যুবকের ঘাটে তলিয়ে যাওয়ার ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল। সূত্রের খবর, এই ছাতুবাবুর ঘাটে সালকিয়ার সীতানাথ বসু লেনের একটি পুজোর প্রতিমা বিসর্জন দিতে এসেছিলেন বেশ কজন যুবক। প্রতিমাকে বিসর্জন দিতে চারজন গঙ্গায় নামলে ভাটার টানে তারা প্রত্যেকেই তলিয়ে যান। আর এরপরই পুর কর্মীদের তৎপরতায় তিন যুবককে উদ্ধার করা গেলেও সৌরভ মিত্র নামে একজনের সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

সূত্রের খবর, তলিয়ে যাওয়া এই বছর 46 এর সৌরভ মিত্রের বাড়ি সালকিয়ার সীতানাথ বসু লেনে। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় ডুবুরি নামালেও উদ্ধারকার্য অসম্পূর্নই থেকে গেছে। আর এইখানেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে পর্যাপ্ত পুলিশ কর্মী থাকা সত্তেও কেন এক যুবক এইভাবে গঙ্গায় তলিয়ে গেলেন? সব মিলিয়ে নিরাপত্তার বজ্র আটুনিতেও আটকানো গেল না দশমীর দুর্যোগ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!