এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > গ্রেপ্তার হবেন কি মুকুল রায়? প্রতারণা মামলায় দশম এফআইআর নিয়ে চূড়ান্ত জল্পনা

গ্রেপ্তার হবেন কি মুকুল রায়? প্রতারণা মামলায় দশম এফআইআর নিয়ে চূড়ান্ত জল্পনা

কিছুদিন আগেই রেখে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার হন বিজেপি নেতা নেতা মুকুল রায়ের শ্যালক সৃজন রায়। সেই মামলায় নাম জড়িয়ে যায় মুকুল রায়েরও। সৃজনবাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগ মুকুল রায় যখন রেলমন্ত্রী হয়েছিলেন তখন রেখে চাকরি দেওয়ার নাম করে বেশ কিছু ব্যক্তির কাছে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়েছিলেন। প্রসঙ্গত, মুকুলবাবু রেলমন্ত্রী হন ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে। অভিযোগ ওঠে মুকুলবাবুর উপস্থিতিতেই প্রতারিতদের কাছ থেকে টাকা নেন সৃজনবাবু। ফলে কাকতালীয়ভাবে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে মুকুলবাবু বিজেপিতে যোগ দিতেই, ঘটনার পর ৬ বছর বাদে এই ঘটনায় গ্রেপ্তার হন মুকুল রায়ের শ্যালক সৃজন রায়। এমনকি এই মামলাতে মুকুলবাবুরও গ্রেপ্তারের সম্ভবনা দেখা দেয়। ফলে আদালতে গিয়ে আগাম জামিন নেন মুকুল রায়।

এই মামলায় এর আগে ৯ টি এফআইআর হয়, প্রতিটির ক্ষেত্রেই মুকুল রায়কে স্বস্তি দিয়ে আদালত জানিয়ে দেয় এক্ষুনি মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে পুলিশ কোনো পদক্ষেপ (পড়ুন গ্রেপ্তার) নিতে পারবে না। কিন্তু আজ কলকাতা হাইকোর্টের গ্রীষ্মকালীন বেঞ্চে এই মামলার দশম এফআইআরের বিরুদ্ধে মুকুল রায়ের আইনজীবী আবেদন করেন আগের ৯ টি এফআইআরের মতোই পুলিশ যেন কোন পদক্ষেপ না নেয়। তার পরিপ্রেক্ষিতে, কলকাতা হাইকোর্ট জানিয়ে দিয়েছে – হাইকোর্ট এ ব্যাপারে এখনই হস্তক্ষেপ করবে না, মূল মামলাটির সঙ্গেই এটির নিষ্পত্তি করবে আদালত। গরমের ছুটির পরে সেই মামলার শুনানি হবে রেগুলার বেঞ্চে। এরপরেই মুকুলবাবুর আইনজীবী জানান, যেহেতু আদালত অন্য এফআইআরগুলির সঙ্গে এই এফআইআরটির ব্যাপারে শুনতে বলেছে, ফলে মূল মামলাটির নির্দেশই বহাল থাকবে, পুলিশ কোনও পদক্ষেপ করতে পারবে না।

কিন্তু অন্যদিকে, কলকাতার এক প্রথম সারির পোর্টালের খবর অনুযায়ী, সরকারি পক্ষের আইনজীবী জানান, সৃজনবাবুর বাড়ি থেকে জাল স্ট্যাম্প, সিল, লেটারহেড উদ্ধার হয়েছে। রেখে চাকরি দেওয়া হবে জানালেও রেলওয়ে বোর্ডের কোনো পরীক্ষায় হয় নি, এমনকি যে মেডিক্যাল সার্টিফিকেট তৈরী করা হয়েছিল তাও জাল। এইসবের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত জানিয়েছে দশম এফআইআর নিয়ে কোনও হস্তক্ষেপ করবে না, ফলে পুলিশ যদি মনে করে তাহলে কোনো ‘অভিযুক্তকে’ গ্রেপ্তার করতেই পারে। আর তাই সব মিলিয়ে ক্রমশ রহস্য বাড়ছে প্রতারণা কাণ্ডে মুকুল রায়ের গ্রেপ্তারি নিয়ে। যদিও এই বক্তব্যের সত্যতা বা সূত্র সম্পর্কে ওই ওয়েব পোর্টালে কিছু লেখা নেই, প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফেও এই বক্তব্যের সত্যতা যাচাই করে দেখা সম্ভব হয় নি। এই প্রবন্ধের শেষাংশ সম্পূর্ণরূপে ওই পোর্টালে প্রকাশিত খবরের পরিপ্রেক্ষিতে করা, কোনোভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বা কোনো ব্যক্তি বা দলের সম্মানহানির উদ্দেশ্যে রচিত নয়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!