এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার প্রাইভেট আয়ূশ পড়ার খরচ বৃদ্ধি পেতে চলেছে বেশ কয়েক লক্ষ টাকা – জানুন বিস্তারিত

এবার প্রাইভেট আয়ূশ পড়ার খরচ বৃদ্ধি পেতে চলেছে বেশ কয়েক লক্ষ টাকা – জানুন বিস্তারিত

চিন্তা বাড়ল প্রাইভেটে আয়ূশ পড়তে ইচ্ছুক ছেলেমেয়েদের। কোর্স ফি একলাফে কয়েক লাখ টাকা বাড়ানোর দাবী তুলল বাংলার ১০ টি বেসরকারি আয়ূশ মেডিক্যাল কলেজ। এর মধ্যে রয়েছে সাতটি হোমিওপ্যাথিক,দুটি আয়ুর্বেদ এবং একটি ইউনানি মেডিক্যাল কলেজ। গত ৭ আগষ্ট এই ১০ টি আয়ূশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ও প্রিন্সিপাল সুপারিনন্ডেন্টরা যৌথভাবে রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিবকে চিঠি দিয়ে তাঁদের প্রস্তাবের কথা জানিয়েছেন। দাবীপত্রে প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে স্বাস্থ্যভবনের ডিজি (আয়ূশ),যুগ্মসচিব (আয়ূশ),হোমিওপ্যাথি,আয়ুর্বেদ ইউনানির কর্মকর্তাদের।

দাবীপত্রে বিএইচএমএস পাঠ্যক্রমের পড়াশুনোর খরচা বাবাদ যে টাকার অঙ্ক সামনে আসলো সেগুলি হল- ফ্রি সিট বা নিট উত্তীর্ণ, তুলনায় উপরের র্্যঙ্কিং থাকা পড়ুয়াদের কোর্স ফি ৮ লক্ষ ৬৭ হাজার ৫০০ টাকা রাখার দাবী জানানো হয়েছে। সেই কলেজগুলিতেই ম্যানেজমেন্ট আসনে ভর্তির জন্য কোর্স ফি-র জন্য ১১ লক্ষ ৬৭ হাজার ৫০০ টাকা রাখার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি দুটি বেসরকারি আয়ুর্বেদ ও একটি ইউনানি কলেজের ফ্রি সিট ও ম্যানেজমেন্ট সিটে পড়ার খরচ যথাক্রমে ন’লক্ষ এবং সাড়ে ১৩ লক্ষ টাকা রাখার দাবী করা হয়েছে। এ খবর প্রকাশ্যে আসতেই মাথায় হাত পড়েছে অভিভাবক এবং ছাত্রছাত্রীদের একাংশের।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আয়ূশ পড়ার খরচ এক দফায় এতো লাখ টাকা বাড়লে কীকরে কোর্স ফি জোগাড় করবেন তাঁরা এটাই মাথাব্যাথার কারণ হয়েছে। সবথেকে বড় প্রশ্ন,মধ্যবিত্তরা এতো টাকার পাহাড় জোগাড় করবেনই বা কীকরে? উল্লেখ্য,এতোদিন জেনপাউ- এর মাধ্যমে ভর্তি হলে স্নাতকস্তরে আয়ুশ পাঠক্রমগুলিতে (বিএইচএমএস, বিএএমএস এবং বিইউএমএস) মোটামুটি ৫ থেকে ৬ লাখের মধ্যেই  খরচ নেওয়া হত। ম্যানেজমেন্ট আসন বা পেমেন্ট আসনগুলোতে সেই খরচ বেড়ে হত কমবেশি ৮-৯ লাখ টাকা। এবার সেই খরচাটাই একলাফে এতো গুন বেড়ে যাওয়ায় মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল পড়ুয়াদের।

উল্লেখ করার মতো বিষয় হল,২০০৩ সালের ১০ জুলাই সরকার প্রাইভেট হোমিওপ্যাথি কলেজগুলির ক্ষেত্রে ফি নির্ধারণ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছিল। তাতে ফি ধার্য করা হয়েছিল প্রায় সাড়ে তিরিশ হাজার টাকা। তারপর বহুদিন পেরিয়ে গেলে ফি কাঠামোর কোনো সংস্কার করা হয়নি। প্রাইভেট আয়ূশ কলেজগুলো অবশ্য বছর বছরই নিজেদের ফি নিজেরাই ঠিক করে নেয়। তবে সেক্ষেত্রে সরকারকে লিখিত আকারে জানিয়ে দিতে হয়। কিন্তু সরকার এ ব্যাপারে কোনো স্পষ্ট নির্দেশ দেয় না। ফলে যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার কলেজ কর্তৃপক্ষই নেয়। এভাবেই চলছে বহুদিন।

এ প্রসঙ্গে কাঁথির বেসরকারি আয়ুর্বেদিক মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ স্বরূপ দে জানান তাঁদের নিরুপায় অবস্থার কথা। সিসিআইএম-এর নিয়ম মেনে শিক্ষক-কর্মী রাখা, বিভাগগুলি চালানো সোজা নয় বলেই যুক্তি তাঁর। বিশেষত দ্রব্যগুণ, পঞ্চকর্ম ইত্যাদি বিভাগের পঠনপাঠনের পরিকাঠামো বজায় রাখা যথেষ্ট খরচ সাপেক্ষ বলেই জানান তিনি। ৪০০ গাছ-গাছালির ভেষজ বাগানও ঠিক রাখতে হয়। গত বছর ফ্রি আসনে কমবেশি ৬ লক্ষ ১০ হাজার টাকা এবং ম্যানেজমেন্ট সিটে ন’লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন তাঁরা, এটা খরচ সাপেক্ষ ব্যাপার। ফি না বাড়ালে কলেজ চালানো সত্যিই সম্ভব নয়।

অন্যদিকে, বীরভূমের বেসরকারি হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ তপন চট্টোপাধ্যায়ও স্বরূপবাবুর সুরেই তুলে ধরলেন তাঁদের নিরুপায় অবস্থার কথা। ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের উপর আর্থিক বোঝা বাড়ার প্রসঙ্গটিকেও অস্বীকার করলেন না তিনি। যুক্তিতে জানালেন সরকারি অনুদান এবং ছাত্রছাত্রীদের ফি মিলিয়েও যা আয় হয়, তার থেকে কমবেশি দেড় থেকে দ্বিগুণ টাকা খরচ হয়। ওদিকে রাজ্যের যুগ্মসচিব (আয়ূশ) অদিতি দাশগুপ্ত এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাইলেন না। বক্তব্যে জানালেন,’ এখনও পর্যন্ত সরকারি স্তরে ওদের ফি পুনর্গঠন করা হয়নি। আলোচনার স্তরে আছে। তাই কোনও মন্তব্য করতে পারব না।’

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!