এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > যোগ্যতা অনুসারে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি নিয়ে মুখ খুললেন রাজ্য সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস

যোগ্যতা অনুসারে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি নিয়ে মুখ খুললেন রাজ্য সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস

পুরোনো স্কেলে বেতন পাওয়া নিয়ে রাজ্যের হাজার হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের মনে জাগছে ‘বঞ্চনার’ ক্ষোভ। কিছুদিন আগেই উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বা ইউইউপিটিএ কলকাতায় এই নিয়ে এক মহা মিছিল ও সমাবেশ করে। সংগঠনটির দাবি ছিল, প্রাথমিক শিক্ষকদের ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা কেন্দ্রের বেঁধে দেওয়া নিয়ম অনুযায়ী হচ্ছে, এমনকি প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য ট্রেনিংও আবশ্যিক করে দেওয়া হয়েছে – অথচ, বেতন দেওয়ার বেলায় দেওয়া হচ্ছে পুরোনো স্কেলে। সেদিনের মিছিলের উদ্যোক্তাদের দাবি ছিল, সেদিন অন্তত ৪০ হাজার প্রাথমিক শিক্ষক-শিক্ষিকা সেই প্রতিবাদ মিছিলে পা মিলিয়েছিলেন।

আর এবার সংগঠনটির লক্ষ্য ও ভবিষ্যৎ আন্দোলনের অভিমুখ নিয়ে সংগঠনের রাজ্য সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস মুখোমুখি হলেন প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার। আমাদের সঙ্গে এক এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে জানালেন এই আন্দোলনের অজানা নানা কথা। এই আন্দোলনের সঙ্গে যেহেতু জড়িয়ে রয়েছে রাজ্যের হাজার হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের ভাগ্য, তাই আপনাদের জন্য পৃথাদেবীর দেওয়া সাক্ষাৎকার হুবহু তুলে দেওয়া হল।

প্রিয় বন্ধু – UUPTA এর নাম বদলে এখন UUPTWA, হঠাৎ এই নাম পরিবর্তন কেন?
পৃথা বিশ্বাস – UUPTA নামের সঙ্গে ‘ওয়েলফেয়ার’ শব্দটি যোগ হওয়াতে রেজিস্ট্রেশান পেতে সুবিধে হয়েছে তাই এখন UUPTWA। এর পিছনে অন্য কোন কারন নেই।

প্রিয় বন্ধু – আপনাদের ৭ ই অগাস্ট সমাবেশ কি সফল বলে মনে করেন আপনারা?
পৃথা বিশ্বাস – জমায়েতের নিরিখে ৭ ই আগস্টের সমাবেশ অবশ্যই সফল। আবার আমাদের উদ্দেশ্য ছিল আইন সভার সমস্ত পক্ষকে আমাদের দাবি সম্পর্কে অবহিত করা। তাতেও আমরা সফল। সেদিন আমরা শিক্ষা সচিব থেকে শুরু করে বিরোধী দলনেতা সবার কাছেই আমাদের দাবিপত্র পৌঁছে দিতে পেরেছি। এমনকি, ন্যায্য দাবীর আবেদনপত্র পরবর্তীকালে বিজেপির পরিষদীয় দলনেতার কাছেও পৌঁছে দিয়েছি। ওনারা প্রত্যেকেই আমাদের দাবির যৌক্তিকতা স্বীকার করেছেন, তাই সেই দিক দিয়েও আমরা সফল।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রিয় বন্ধু – আপনাদের মূল দাবি কি?
পৃথা বিশ্বাস – দেখুন, NCTE নর্ম অনুযায়ী সারা দেশের মত আমাদের রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের যোগ্যতা এখন উচ্চ-মাধ্যমিকে ৫০% ও সাথে দুই বছরের ডিএলএড প্রশিক্ষন – যেটা আগে ছিল মাধ্যমিক। রোপা ২০০৯-এ শিক্ষকদের বেতন কাঠামোর ক্ষেত্রে সেন্ট্রাল পে কমিশন-৬ মেনে চলার কথা বলা হয়েছে।

তাতে প্রাথমিক শিক্ষিকদের জন্য ৯,৩০০ – ৩৪,৮০০ স্কেল এবং গ্রেড পে ৪,২০০ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু, দুর্ভাগ্যবশত আমাদের রাজ্যে হাই স্কুলের শিক্ষকদের বেলায় রোপা ২০০৯ মেনে বেতন দেওয়া চালু হলেও প্রাথমিকে সেটা দেওয়া হয়না! বর্তমানে, পশ্চিমবঙ্গের প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামো ৫,৪০০ – ২৫,২০০ এবং সাথে গ্রেড পে ২,৬০০ – যেটা আদতে মাধ্যামিক যোগ্যতার বেতন কাঠামো!

এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি, ২০১০ সালে রাজ্য সরকার শিক্ষকদের যোগ্যতা নির্ধারণের ক্ষেত্রে NCTE নর্ম মেনে নেয় এবং শিক্ষকরা সেই মত নিজেদের যোগ্যতা বাড়াতে বাধ্য হন। তবে যোগ্যতা বাড়ালেও বেতন কাঠামর পুনর্বিন্যাস করা হয়নি। ফলস্বরূপ – অন্যান্য রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের সাথে আমাদের রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতনের বৈষম্য অনেকটাই! এমনকি বৈষম্য – এই রাজ্যেরই অনান্য শিক্ষকদের সাথেও। এতে আমাদের সামাজিক সম্মান ক্ষুণ্ণ হচ্ছে – আমরা বঞ্চিত হচ্ছি ও বর্তমান দুর্মূল্যের বাজারে জীবনধারণ করার পক্ষেও তা রীতিমত কষ্টকর।

তাই, আমাদের মূল দাবি – আমরা যে সময় থেকে NCTE নর্ম অনুযায়ী যোগ্যতা বৃদ্ধি করেছি সেই সময় থেকেই আমাদের ন্যায্য যোগ্যতা অনুসারে বেতন দিতে হবে। অর্থাৎ, পে কমিশন এর আগেই পে-রিভিশন করে সেই রিভাইসড স্কেলের ওপর পে কমিশন এফেক্ট দিতে হবে।

প্রিয় বন্ধু – সরকারের তরফ থেকে এখনো পর্যন্ত কি এই নিয়ে কোন পজিটিভ সাইন পেয়েছেন আপনারা?
পৃথা বিশ্বাস – আমরা বিভিন্নভাবে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেছি। জেলায় জেলায় ডেপুটেশন দিয়েছি – এমনকি শিক্ষা সচিব ও শিক্ষামন্ত্রীকেও ডেপুটেশন দিয়েছি। ইতিমধ্যেই কলকাতায় একটি বড় সমাবেশ করা হয়েছে এবং সহকর্মীদের সই সংগ্রহ করে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তা পাঠানোও হয়েছে। আশা করব, মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী আমাদের এই দাবি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখে – এর যথাযোগ্য বিহিত করবেন। শুধু হাজার হাজার প্রাথমিক শিক্ষক-শিক্ষিকাই নন, তাঁদের পরিবারের সদস্যরাও – সবমিলিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষ মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন – তাই আশা করছি উনি এর গুরুত্ত্ব বুঝে দ্রুত এর সমাধান করবেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!