এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রাথমিক শিক্ষায় বড়সড় রদবদল – পরিকাঠামো বদলের সরকারিভাবে প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেল

প্রাথমিক শিক্ষায় বড়সড় রদবদল – পরিকাঠামো বদলের সরকারিভাবে প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেল

জল্পনা চলছিল অনেকদিন ধরেই। এবার সেই জল্পনাতেই সিলমোহর দিতে চলেছে রাজ্য সরকারের স্কুলশিক্ষা দপ্তর। সূত্রের খবর;  পঞ্চম শ্রেনীকে প্রাথমিকে আনার ব্যাপারে প্রক্রিয়া শুরু করতে গত শুক্রবারই স্কুলশিক্ষা বিভাগ থেকে জেলাগুলিকে একটি অর্ডার পাঠানো হয়। যেখানে বর্তমানে স্কুলগুলিতে ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের সংখ্যা, বাড়তি ক্লাসরুম, শৌচালয়, পানীয় জলের ব্যাবস্থা সহ বিভিন্ন ব্যাপারে জানতে চেয়ে আগামী 10 আগষ্টের মধ্যে তা একটি এম এস এক্সেল ফরমাটে পাঠাতে বলেছে স্কুলশিক্ষা দপ্তর।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

হিসেব অনুযায়ী, প্রত্যেক বছরই এই পঞ্চম শ্রেনীতে 18 লক্ষ ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়। আর তাই প্রাথমিকে এই পঞ্চম শ্রেনী অন্তর্ভুক্ত হলে সেখানে প্রয়োজন 50 হাজার প্রাইমারি টিচার। এখানেই অনেকে মনে করছেন, এখন উচ্চ মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক স্তরের জন্য শিক্ষক নিয়োগ চলছে। ফলে পঞ্চম শ্রেনী উচ্মাধ্যমিক থেকে প্রাথমিকে এলে উচু ক্লাসগুলিতে প্রচুর শিক্ষক পদ তৈরি হবে। আর তাই রাজ্যে স্কুলগুলি যেহেতু এখনও ইন্টিগ্রেটেড, ফলে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকেও স্তরেও এতে শিক্ষক নিয়োগের প্রয়োজন কমবে।

শিক্ষাদপ্তরের অনেকের ধারনা, উচ্চ মাধ্যমিকের সাথে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষকদের বেতনের পার্থক্য রয়েছে অনেকটাই। তাই ষষ্ট বেতন কমিশন চালুর আগে এটি কার্যকর করলে সেই বেতনের বোঝা কমে রাজ্যের কয়েকশো কোটি টাকা বেঁচে যেতে পারে। তবে পঞ্চম শ্রেনীকে প্রাথমিকে ঢোকানো নিয়ে বঙ্গীয় শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সমিতির সহ সাধারন সম্পাদক স্বপন মন্ডল বলেন, “সরকার এটা চালু করলে মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষক বাড়তি হবে তা যেমন ঠিক তেমনি প্রাথমিক স্তরেও নতুন শূন্যপদ সৃষ্টি করতে হবে সরকারকে।” সব মিলিয়ে পঞ্চম শ্রেনীকে প্রাথমিকে অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তীব্র তৎপরতা স্কুলশিক্ষা বিভাগের।

 

Top
error: Content is protected !!