এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ বিজেপি নেতার, জেনে নিন

প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ বিজেপি নেতার, জেনে নিন

লোকসভা নির্বাচনে এবার তৃণমূল 22 এবং বিজেপি 18 টা আসন দখল করেছে। আর তৃণমূল প্রভাবিত রাজ্যে বিজেপির হঠাৎ করেই এই উত্থানে কিছুটা হলেও আতঙ্কিত হয়েছেন রাজ্যের ঘাসফুল শিবিরের নেতারা। আর পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ফলাফল পর্যালোচনা বৈঠকে কেন দলের এই খারাপ ফলাফল হল!

তা নিয়ে বিশ্লেষণ করতে গিয়ে জনসংযোগের যে যথেষ্ট অভাব এই খারাপ ফলাফলের প্রধান কারণ, তা উঠে এসেছে। আর এরপরই দলকে কিভাবে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে ঘুরে দাঁড় করিয়ে মানুষের সঙ্গে সংযুক্ত করা যায়, তার জন্য নানা রণনীতি বেঁধে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভোটগুরু হিসেবে প্রশান্ত কিশোরকে দলের রণনীতিকার হিসেবে নিয়োগ করেন তিনি। আর এরপরই সেই প্রশান্ত কিশোরের প্ল্যানমাফিক পথ চলতে শুরু করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুদিন আগেই “দিদিকে বলো” নামে একটি কর্মসূচি চালু করে একটিও নম্বর এবং ওয়েবসাইট দিয়ে সেখানে সমস্ত মানুষ তাদের অভাব-অভিযোগ সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানাতে পারবে বলে জানানো হয়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

যার পরই “দিদিকে বলো” কর্মসূচি নিয়ে প্রচারের জন্য দলের বিধায়কদের সাধারণ মানুষের দুয়ারে যাওয়ার নির্দেশ দেয় তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরের প্ল্যানে তৃণমূল নেতারা এইভাবে জনসংযোগ করলেও তা আদতে বিজেপিকেই নকল করা হচ্ছে বলে পাল্টা এই ব্যাপারে সরব হতে দেখা গেছে রাজ্যের বিরোধী দল বিজেপির নেতাদের।

আর এবার তৃণমূলের রণনীতিকার হিসেবে পরিচিত ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর এবং তার সংস্থার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। সূত্রের খবর, রবিবার দুর্গাপুরে বিজেপির চিন্তন বৈঠকের মাঝে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাহুল সিনহা বলেন, “মোটা টাকা দিয়ে তৃণমূল প্রশান্ত কিশোরকে এনেছে, তাতে আমাদের কিছু বলার নেই। কিন্তু প্রশান্ত কিশোর ও তার দল যেভাবে প্রশাসনিক কাজে হস্তক্ষেপ করছে, তা মেনে নেওয়া যায় না। সরকারি অফিসে বসে আধিকারিকদের নির্দেশ দিচ্ছেন তারা। সরকারের সম্পূর্ণ দলীয়করণের যে চেষ্টা করছে তৃণমূল, তার বিরোধিতা করবে বিজেপি।”

বস্তুত, সম্প্রতি এক সরকারি কর্তার অফিসে গিয়ে প্রশান্ত কিশোরের টিম সমস্ত ব্যাপার যাচাই করছিলেন। কিন্তু তাদের সঙ্গে কাজ করতে নারাজ ছিলেন সেই সরকারি অফিসার। যার পরেই সেই সরকারি অফিসারকে বদলি করে দেওয়া হয়। যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। এদিন সেই কথা তুলে ধরেই তৃণমূলকে খোঁচা দিলেন বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা বলে মনে করছে পর্যবেক্ষকদের একাংশ। যদিও বা বিজেপি নেতার এই মন্তব্যকে গুরুত্ব দিতে না তৃনমূল।

তাদের দাবি, প্রশান্ত কিশোর এক সময় বিজেপির হয়ে কাজ করেছেন। এখন তৃণমূলের হয়ে কাজ করাতেই তাকে আক্রমণ করছে বিজেপি। ওদের কাছে অভিযোগের সমর্থনে কোনো প্রমাণ নেই। এর সম্পূর্ণটাই ভিত্তিহীন। সব মিলিয়ে এবার প্রশান্ত কিশোর ও তাঁর টিমের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করে তৃণমূলকে বিপাকে ফেলার চেষ্টা করলেন বিজেপির রাহুল সিনহা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!