এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মোদির দরাজ প্রশংসা প্রশান্ত কিশোরের, জল্পনা তুঙ্গে রাজনৈতিকমহলে, অস্বস্তিতে তৃণমূল

মোদির দরাজ প্রশংসা প্রশান্ত কিশোরের, জল্পনা তুঙ্গে রাজনৈতিকমহলে, অস্বস্তিতে তৃণমূল

লোকসভা নির্বাচনে দলের ভরাডুবি হওয়ার পরই তৃণমূলের রননীতিকার হিসেবে দায়িত্ব নেন ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর। যার পরেই প্রশান্ত কিশোরের পরিকল্পনায় দিদিকে বলো কর্মসূচি শুরু হয় গোটা রাজ্যজুড়ে। লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যজুড়ে প্রবল গেরুয়া উত্থানের পরে প্রশান্ত কিশোরের দাওয়াইয়ে নতুন করে ঘুরে দাঁড়াবার অঙ্গীকার নেন শাসকদলের নেতা-কর্মীরা। কিন্তু এবার কি মধুরেণ সমাপয়েৎ হতে চলেছে?

ভোটগুরুর সাথে কি সম্পর্কের ফাটল ধরতে চলেছে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের? এমনটাই জল্পনা ছড়িয়েছে প্রশান্ত কিশোরের করা একটি টুইট ঘিরে। জানা যাচ্ছে এদিন নিজের টুইটারে মোদির প্রশংসা করে একটি পোস্ট করেছেন। যেখানে তিনি লিখেছেন, “আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কিছুটা ব্যাকফুটে থাকা ডোনাল্ড ট্রাম্পের হয়ে মোদী যা করলেন তা ভীষণভাবেই স্মার্ট।” সাথেই তিনি লেখেন, “মোদী এখানে সংখ্যাটাকেই হাতিয়ার করেছেন (অর্থাৎ আমেরিকান ইন্ডিয়ান)। আর কে না জানে গণতন্ত্রে সংখ্যাটাই সব। এর আগে এত ভালো কৌশল কোনও প্রধানমন্ত্রী ব্যবহার করেননি।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, হিউস্টনের সমাবেশ অভূতপূর্ব বলেও মন্তব্য করেন মোদী।  মোদীর পর ভাষণ দিতে উঠে পাল্টা মোদীর প্রশংসা করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, আমেরিকায় বিশ্বস্ত মোদী। মোদীকে তাঁর বিশ্বস্ত বন্ধু বলেও বর্ণনা করেন তিনি। ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছাও জানান তিনি। ট্রাম্প বলেন মোদীর সঙ্গে কাজ করতে চাই। তিনি আশ্বস্ত করে বলেন, আমেরিকা সবসময় ভারতের পাশে রয়েছে। রবিবার রাতে ট্রাম্পকে পাশে নিয়ে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানান নরেন্দ্র মোদী। মঞ্চ থেকে নিজের দেশে ভীষণ ভাবে জনপ্রিয় সেই স্লোগান তুলে তিনি বলেন, আবকি বার, ট্রাম্প সরকার। আর বিদেশে মোদীর এহেন ভোট প্রচার মন কেড়ে নিয়েছে ‘ভোট গুরু’ প্রশান্ত কিশোরের। যা ঘিরেই জোর শোরগোল শুরু।

কেননা তিনি এখন তৃণমূলের ভোট ম্যানেজার। আর বাংলায় বর্তমানে তৃণমূলের প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপি। যে কারণে বিজেপিকে আটকে ফের ক্ষমতা দখলের লক্ষে ভোটগুরুকে নিয়ে আসা। আর সেই ভোট গুরুই তৃণমূলের প্রধান ঘোষিত শত্রু মোদীর (সে যতই প্রধানমন্ত্রী হননা কেন?) প্রসংসা করছেন ? সে তো একেবারেই কাম্য নয়। আর এই নিয়েই তোলপাড় রাজনৈতিকমহল।

তবে রাজনৈতিকমহলের প্রশ্ন, এর পরেও কি ভোটগুরুর সাথে কি সম্পর্কের ফাটল ধরবে না তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের? যদিও এই নিয়ে এখনো পর্যন্ত তৃণমূলের তরফ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে, তৃণমূল শিবিরের হয়েও মোদী-প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে বঙ্গ-রাজনীতিতে জল্পনা চরমে নিয়ে গেলেন প্রশান্ত কিশোর – তা এককথায় মেনে নিচ্ছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!