এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে ফের মাঠে নামতে চাইছে আরএসএস

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে ফের মাঠে নামতে চাইছে আরএসএস

সম্প্রতি আরএসএসের সদর দপ্তর নাগপুরে অনুষ্ঠিত হল সংঘের এর একটি অনুষ্ঠান। আর সেখাই প্রধান অতিথি হিসাবে ভাষণ রাখতে দেখা যায় ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা প্রনব মুখোপাধ্যায়কে। আর তাতেই তীব্র শোরগোল পড়ে যায় জাতীয় রাজনীতিতে। চিরকাল কংগ্রেসের সেবা করে এসে কেন তিনি সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুতে অবস্থিত আরএসএসের অনুষ্ঠানে যোগ দিলেন তা নিয়ে তৈরি হয় বিতর্ক। অন্যদিক, আরএসএস কর্তা দাবী করছেন যে, প্রনব বাবুর বক্তব্যে তাঁদের দলীয় আদর্শেরই প্রতিফলন দেখা গেছে। আরএসএসের মতোই তিনিও হিন্দু ধর্মের বহুত্ববাদ নিয়ে ঠিক একই মতামত পেশ করলেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

ঠিক একই দাবি করতে দেখা গেলো ইংরাজি ‘অর্গানাইজার’ এবং হিন্দি ‘পাঞ্চজন্য’ নামক দুটি পত্রিকাকে। তাঁরাও বলছে আরএসএস আধিকারিক মোহন ভাগবতের মতাদর্শে সঙ্গে সাদৃশ্য রয়েছে প্রণববাবুর কথার। ‘পাঞ্চজন্য’ পত্রিকার প্রচ্ছদকাহিনিতে ছাপানো হয়েছে যে আরএসএস কর্তাটা ভাবতেই পারেননি প্রনববাবু তাঁদের মতাদর্শকে সমর্থন করবেন। তবে প্রণববাবু তা করতে গিয়ে নিজের কংগ্রেসীর সীমার গন্ডি অতিক্রম করেননি। হিংসা এবং অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে প্রণববাবু যা বক্তব্য রেখেছেন তা আসলে দেশদ্রোহী এবং মাওবাদীদের প্রতিই হুঁসিয়ারী বার্তা। এমনটাই দাবী করছে ওই প্রবন্ধ। অন্যদিকে, রতন শারদা তাঁর আর্টিকলে লিখেছেন যে, প্রণববাবু হিন্দুপন্থী কথা বলতে যে বহুত্ববাদ প্রসঙ্গ টেনেছেন তা কেবল হিন্দুরাই মানবে। ইসলাম এবং খ্রীষ্টানদের কাছে তা অপ্রাসঙ্গিক। ‘অর্গানাইজার’ পত্রিকার প্রচ্ছদকাহিনিতে বলা হয়েছে যে, সংঘের অনুষ্ঠানে প্রনববাবু ভাষণ দেওয়াটা রাজনৈতিক গুরুত্বের থেকে অনেক বেশি প্রাসঙ্গিক জাতীয়তাবাদী চেতনার জাগরণ হিসাবে। সেদিন তিনি বহুত্ববাদ প্রসঙ্গের উপর বেশি ফোকাস করলেও কথাসূত্রে এনেছে জাতীয়তাবাদ এবং প্রাচীন মূল্যবোধের কথাও। অন্যদিকে, ‘ভারতের উদ্দেশ্যে বক্তৃতা’ নাম্মী অন্য আর একটি প্রবন্ধে বলা হয় যে, আরএসএসের প্রতি সদর্থক চিন্তাভাবনা এবং তাঁদের মতাদর্শের প্রতি আস্থাই প্রতিফলিত হতে দেখা গেছে রাষ্ট্রপতির বক্তব্যে। সেদিন তাঁরর বক্তব্যে উঠে এসেছিলো তরুণ, প্রশিক্ষিত এবং উচ্চশিক্ষিত প্রজন্মের ভারতমাতার স্বার্থে জেগে ওঠার বার্তা। তাই পত্রিকা দাবী করছে যে, এরকম বানী তো সংঘের কর্তার কন্ঠেই শোনা যেতো। কংগ্রেসী নেতার মুখে আরএসএসের বুলি আওড়ানোর দাবী ওঠায় বেশ ক্ষুব্ধ রাজ্য তথা জাতীয় স্তরের কংগ্রেস নেতৃত্বরা। এটা নিয়ে বেশ জল্পনা শুরু হয়েছে হাতপার্টির দলীয় অন্দরে, এমনটাই জানা যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!