এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > গতকাল রাত থেকেই বিজেপি নেতাদের গাড়িতে তল্লাশি শুরু, বিজেপি রাজ্য দপ্তরের বাইরে নাকা-চেকিং!

গতকাল রাত থেকেই বিজেপি নেতাদের গাড়িতে তল্লাশি শুরু, বিজেপি রাজ্য দপ্তরের বাইরে নাকা-চেকিং!

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – রাজ্যে চলছে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ – সকাল থেকেই মেদিনীপুর, ঘাটাল, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুরের মত লোকসভা আসনে ছাপ্পা, বিরোধী এজেন্ট বসতে না দেওয়া, বিরোধী প্রার্থীদের মারধর, গাড়ি ভাংচুর প্রভৃতি ঘটনায় সরগরম রাজ্য-রাজনীতি। বলা বাহুল্য প্রতি ক্ষেত্রেই অভিযোগের তীর রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে। আর এর মাঝেই রাজ্য-রাজনীতি নতুন করে সরগরম হয়ে ওঠে, যখন বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের গাড়ি একাধিক জায়গায় খানা-তল্লাশি চালায় রাজ্য-পুলিশ।

মুকুল রায় বাংলায় বিজেপির ভোট-ম্যানেজার হলেও আদতে তিনি বর্তমানে দিল্লির ভোটার। আজ দিল্লিতে ভোট দিতে গিয়েছিলেন তিনি, ভোট দিয়ে ফেরার পথে তাঁর গাড়ি বিমানবন্দর ছাড়তেই, তা থামিয়ে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ। এরপর সেই তল্লাশিতে কিছু না পেয়ে, মুকুলবাবুকে যেতে দিতে বাধ্য হয় পুলিশ, কিন্তু গাড়ি কিছুদূর এগোতেই – আবারো তাঁর গাড়ি থামিয়ে তল্লাশি করে পুলিশ। এবারও কিছু না পেয়ে বিজেপি নেতাকে যেতে দিতে বাধ্য হয় তারা। কিন্তু, কিছুদূর এগোতেই মুকুলবাবুর গাড়ি তৃতীয়বারের জন্য থামানো হয়।

হাতের মুঠোয় আরও সহজে প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে যোগ দিন –

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এইভাবে কোনো অভিযোগ ছাড়াই বারবার গাড়ি থামিয়ে তল্লাশি চালানোর নামে রাজ্য পুলিশ দিয়ে তাঁকে হেনস্থা করানোর জন্য তৃণমূল নেত্রীর উপর ক্ষোভ উগরে দেন মুকুলবাবু। একইসঙ্গে অভিযোগ আনেন ‘ভাইপোর গাড়িতে’ সবথেকে বেশি টাকা পাচার হয়। এই পুলিশের ক্ষমতা থাকলে তাঁকে থামিয়ে সার্চ করে দেখাক। আসলে, এইসব পুলিশরা বাড়িতে গিয়ে এখন আর নিজের সন্তানদের মুখ দেখতে পারেন না। তাই এঁদের উপর আর রাগ হয় না, দলদাস পুলিশের উপর আমার করুনা হয়!

মুকুলবাবুকে রাজ্য পুলিশ দিয়ে এইভাবে বারবার হেনস্থা করার অভিযোগে যখন রাজ্য-রাজনীতি সরগরম, তখন খোঁজ নিয়ে জানা গেল, মুকুলবাবু শুধু একই নন, গতকাল রাত থেকেই এইভাবে পুলিশ দিয়ে তল্লাশির নামে বিজেপি নেতাদের হেনস্থার অভিযোগ উঠছে। এই প্রসঙ্গে বিজেপির যুব নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গতকাল রাতে তাঁর গাড়ি থামিয়েও একই ভাবে তল্লাশির নামে তাঁকে হেনস্থা করা হয়েছে, যদিও তল্লাশিতে কিছুই পায় নি পুলিশ।

শুধু তাই নয়, শঙ্কুদেব পণ্ডার অভিযোগ তৃণমূল নেত্রীর নির্দেশে হেস্টিংসে বিজেপির নতুন রাজ্য অফিসের সামনে নাকাবন্দি করা হয়েছে বিজেপি নেতাদের হেনস্থা করার জন্য। বিজেপির এই তরুণ তুর্কি জানান, এই নিয়ে তিনি ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছেন, পুলিশি তল্লাশি যদি চালাতেই হয় তাহলে দলমত নির্বিশেষে সকল রাজনৈতিক নেতার গাড়িতেই চালাতে হবে। নাকাবন্দি যদি করতেই হয়, তাহলে কলকাতায় সকল রাজনৈতিক দলের রাজ্যদপ্তরের সামনেই তা বসাতে হবে। তৃণমূল নেত্রীর নির্দেশে এইভাবে বেছে বেছে বিজেপি নেতাদের তলাশি ও নাকাবন্দির নামে হেনস্থা করা যাবে না! তল্লাশির নামে মুকুল রায়কে কিভাবে ‘হেনস্থা’ করা হয়েছে দেখে নিন ভিডিওতে –

Top
error: Content is protected !!