এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > পুলিশকে আমলাতন্ত্রের ফাঁস থেকে মুক্ত করতে বড়সড় সুপারিশ কেন্দ্রের – বাড়তে চলেছে টাকা খরচের পরিমান

পুলিশকে আমলাতন্ত্রের ফাঁস থেকে মুক্ত করতে বড়সড় সুপারিশ কেন্দ্রের – বাড়তে চলেছে টাকা খরচের পরিমান

কেন্দ্রের অনুকরণে আমলাতন্ত্রের জটিলতা থেকে রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনকে মুক্ত করতে বড়সড় পদক্ষেপ মোদী সরকারের। রাজ্য পুলিশের ডিজি সহ তাঁদের অধীনস্থ অন্যান্য পুলিশ কর্তাদেরও বাড়তি টাকা খরচের অধিকার দেওয়ার ঘোষণা করেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

কোনো জিনিসের কেনাকাটা থেকে শুরু করে প্রশাসনের জরুরি প্রয়োজনে যাতে অতিরিক্ত খরচ করতে সমস্যা না হয়,সেদিকে গুরুত্ব দিয়েই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সংক্রান্ত একটি কপি পাঠানো হয়েছে রাজ্যের কাছে। তবে এই নিয়ম কবে থেকে কীভাবে কার্যকর হবে এবং এক্ষেত্রে বর্তমানে কী নিয়ম রয়েছে সবকিছু খতিয়ে দেখেই তবেই সিদ্ধান্ত নিতে চাইছে রাজ্যের প্রশাসনিক কর্তারা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রের খবর, বহুদিন ধরেই কেন্দ্রীয় পুলিশ বাহিনীতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজের সময় আর্থিক সমস্যা নজরে আসছে। প্রয়োজনের বাড়তি টাকা চেয়ে আবেদন করা হলেও তা পেতে অনেক সময় লেগে যাচ্ছে আমলাতান্ত্রিক ব্যবস্থার কারণে। ফলত প্রয়োজনের সময় সেই টাকা এসে পৌছাচ্ছে না পদস্থ পুলিশ কর্তাদের কাছে। ফলত সেই কারণে টাকা ফেরত চলে যাচ্ছে বা অন্যকারণে খরচ হয়ে যাচ্ছে।

এর অবিলম্বে সমাধানের বিষয়ে চিন্তা করেই কেন্দ্রীয় বাহিনীতে থাকা ডিজিদের আর্থিক ক্ষমতা বৃদ্ধির প্রস্তাব দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। তাছাড়া পুলিশের বিভিন্ন সামগ্রী কেনাকাটার প্রক্রিয়ার একাধিক স্তর রয়েছে। বর্তমান সময়ের প্রেক্ষিতে দাঁড়িয়ে প্রক্রিয়ার সরলীকরণ করার প্রয়োজনেই উক্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তাছাড়া কিছু কিছু ক্ষেত্রে একটা স্তরকে অন্য স্তরের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়ারও প্রয়োজন রয়েছে। সেটাকে গুরুত্ব দিয়েও ডিজি সেন্ট্রাল আর্মড পুলিস ফোর্সের আর্থিক ক্ষমতা বাড়ানো হয়। এবং একইসঙ্গে তাঁর অধীনস্থ কর্তাদের টাকা খরচ করার ক্ষমতাও কয়েকগুন বাড়ানো হয়। পদ্ধতিতে মাঝেমাঝে কিছু পরিবর্তন আনা হলে কাজের গতি যেমন বৃদ্ধি পায়,তেমনি এর সুফলও মিলতে শুরু করেছে।

রাজ্যের পুলিশ প্রশাসন একইরকম সমস্যায় ভুগছে দেখে কেন্দ্র সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্যগুলোকেও এই প্রস্তাব পাঠাবে। সেইমতোই সুপারিশ যায় প্রতিটি রাজ্যের কাছে। নবান্নের দপ্তরেও কয়েক সপ্তাহ আগে এই সুপারিশ এসে পৌছেছে বলে খবর পুলিশ প্রশাসনের। তার পরিস্কার বলা রয়েছে, জিনিস কেনার ক্ষেত্রে রাজ্যগুলির যে যে প্রকিওরমেন্ট কমিটি রয়েছে, তা তুলে দেওয়া হোক।

কোনো জিনিস কেনার আগে যে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে তার প্রযুক্তিগত আধুনিকতা যাচাই করা হোক। কেন্দ্র এগুলো ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছে বলে জানিয়েছে। কারণ সম্প্রতি রাজ্যগুলো হটকারী সিদ্ধান্তের কারণে প্রযুক্তিগতভাবে নিম্নমানের জিনিস কিনে ফেলছে। কিছুদিন পরে সেগুলো আর ঠিক থাকছে না। ফলত একই জায়গায় ফের নতুন জিনিস কিনতে হচ্ছে। এর জন্যে অতিরিক্ত টাকা খরচ হয়ে যাচ্ছে। অনেক সময়ে কাজের চাপে টেন্ডার পার্চেজ কমিটির বৈঠকে আসতে পারছেন না ডিজিরা। ফলে পিছিয়ে যাচ্ছে প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার কাজ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এক্ষেত্রে ডিজিদের পরিবর্তে ডিজি পদমর্যাদার অফিসার বা স্পেশাল ডিজিকে রাখা হোক,এমনটাই চাইছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। এগুলো অন্যান্য মন্ত্রকে ইতিমধ্যেই চালু হয়ে গিয়েছে। এর সঙ্গে জুড়ে আরো অন্যান্য কিছু বিষয়ে সুপারিশ করা হয়েছে। রাজ্যগুলো এই সুপারিশে সম্মতি দেবে বলেই বিশ্বাস রয়েছে কেন্দ্রের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!