এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আবার কালিয়াচক “গুপ্ত” অস্ত্র কারখানার হদিশ, পুজোর আগে চিন্তায় পুলিশ প্রশাসন

আবার কালিয়াচক “গুপ্ত” অস্ত্র কারখানার হদিশ, পুজোর আগে চিন্তায় পুলিশ প্রশাসন

ফের খবরের শিরোনামে মালদহের কালিয়াচক। পুজোর আগে অস্ত্র উদ্ধারে আশঙ্কার আবারও মেঘ ঘনীভূত হচ্ছে রাজ্যে। সূত্রের খবর, শনিবার ভোররাতে কালিয়াচক এবং মোথাবাড়ি থানার পুলিশের একটি বিশেষ দল মালদা জেলা পুলিশের নেতৃত্বে অস্ত্র উদ্ধারে একটি অভিযানে নামলে উদ্ধার হয় বেশ কিছু অস্ত্র। সূত্রের খবর, মালদহের কালিয়াচক থানার আলিপুর 2 পঞ্চায়েত অফিসের উল্টোদিকে একটি বাড়িতে গ্রিল ফ্যাক্টরি ছিল। আর সেখানেই চলত এই অস্ত্র কারখানার রমরমা কারবার। জানা গেছে, এদিন অভিযানে নেমে সেই গ্রিল ফ্যাক্টরির সামনে দেখে স্বাভাবিক বলে মনে হলেও পেছনেগিয়েই পুলিশ দেখতে পায় যে সেখানে সরিবদ্ধ ভাবে প্রচুর অস্ত্র সাজানো রয়েছে। ঠিক কী কী অস্ত্র ছিল সেখানে?

জানা গেছে, সেই গ্রিল কারখানা থেকে পুলিশ 24 টি ইম্প্রোভাইজড আধুনিক মানের তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র ও সেগুলি নির্মানের সরঞ্জাম বাজেয়াপ্ত করেছে। এছাড়াও সেই কারখানা থেকে দুজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ। ধৃত মহম্মদ তাবরেজ এবং মহম্মদ সাহাবুদ্দিন দুজনকেই জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে যে তাঁদের বাড়ি বিহারের মুঙ্গের জেলার মুসাসিল থানা এলাকায়। এদিকে এই অস্ত্র তৈরির মালিককে এখনও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

গোয়েন্দাদের ধারনা, বাংলাদেশে অস্ত্র পাচারের বাজার ধরতেই এই বিপুল অস্ত্র তৈরি হচ্ছে। এছাড়াও এই রাজ্যের মুর্শিদাবাদ এবং দুই দিনাজপুরেও এই অস্ত্র পাচারে লাভের সন্ধান দেখতেই এই অস্ত্র কারবার শুরু হয়েছে। এদিকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পুজোর আগে এহেন অস্ত্র উদ্ধারে হওয়ায় কিছুটা আতঙ্কে এলাকাবাসী। এই প্রসঙ্গে এদিন মালদহ জেলা পুলিশ সুপার অর্নব ঘোষ বলেন, “কালিয়াচকের অস্ত্র কারখানা থেকে প্রচুর অস্ত্র উদ্ধারের পাশাপাশি বিহারের দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!