এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > শুধু কি মুর্শিদাবাদের মাধ্যমিক-মাদ্রাসা পরীক্ষা হবে? বিজেপির সভা বাতিলে প্রশাসনের সিদ্ধান্তে উঠছে প্রশ্ন!

শুধু কি মুর্শিদাবাদের মাধ্যমিক-মাদ্রাসা পরীক্ষা হবে? বিজেপির সভা বাতিলে প্রশাসনের সিদ্ধান্তে উঠছে প্রশ্ন!

ফের প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিজেপির সভা বানচাল করার অভিযোগ উঠল। মুর্শিদাবাদ থানার কুর্মীতলা মাঠে সভা করার কথা ছিল বিজেপির কেন্দ্রীয় মুখপাত্র তথা কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান মন্ত্রী শাহনাওয়াজ হোসেনের। সেই সভাই বাতিল হয়ে গেল রাজ্য পুলিশের হস্তক্ষেপে। ঘটনায় চরম ক্ষুব্ধ হয়ে শাহনাওয়াজ সাহেবের নেতৃত্বেই লালবাগ মহাকুমা শাসকের অফিস ঘেরাও করে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। রাজ্য সরকারের এবং মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ উগড়ে দেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। একটি বেসরকারি অনুষ্ঠানবাড়িতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ উগরে দেন।

শাহনাওয়াজ হোসেন বলেন, ‘বাংলার মাটিতে বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও নেতাদের হেলিকপ্টার নামতে দেওয়া হচ্ছে না। সভা করতে দেওয়া হচ্ছে না। বাংলায় বিজেপির সভা করতে দেওয়া নিয়ে রাজ্যের তৃণমূল সরকারের সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রীর এত ভয় কিসের? বাংলায় মিটিং, মিছিল এবং সভা করা কি কোনও অপরাধ’? গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ – মাদ্রাসা এবং মাধ্যমিক পরীক্ষার অজুহাতেই বিজেপির সভা পন্ড করল প্রশাসন। এমনকি এবিষয়ে মুর্শিদাবাদ থানার আইসি শ্যামল বিশ্বাস সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সভা করার ব্যাপারে কোনো লিখিত আবেদন বিজেপির তরফ থেকে তিনি পাননি। তাছাড়া কয়েকদিন পরেই মাদ্রাসা এবং মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হয়ে যাচ্ছে। সেজন্যেই মাইক বাজানোর অনুমতি দেওয়া হয়নি, আর সে কারণেই ওরা সভা করেনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আর পুলিশের এহেন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তীব্র ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন রাজ্য বিজেপির নেতারা। তাঁদের বক্তব্য, তৃণমূল কংগ্রেস সভা করলে কি মাইক ব্যবহার হচ্ছে না? খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার বুকে মাইক হাতে ধর্নামঞ্চে দাপিয়ে বেড়ালেন! তার বেলায় পুলিশের অনুমতি মিলতে কোনো অসুবিধা হচ্ছে না! তাহলে কি শুধুমাত্র মুর্শিদাবাদ জেলাতেই, বিশেষ করে যেখানে বিজেপি সভা করতে চাইছে সেখানেই মাধ্যমিক-মাদ্রাসা পরীক্ষা হবে? বাকি রাজ্যে, মানে তৃণমূল কংগ্রেস যেখানে সভা করবে সেখানে এবছর মাধ্যমিক-মাদ্রাসা পরীক্ষা হবে না? গেরুয়া শিবিরের আরও বক্তব্য, পুলিশ যে কতখানি দলদাস হয়ে গেছে – এই ঘটনা আবারো তা প্রমান করল।

এদিকে, পরিকল্পনামতো মুর্শিদাবাদে গনতন্ত্র বাঁচাও সভা না হওয়ায় দুপুর দুটো নাগাদ মহাকুমা শাসকের অফিসের সামনে মিছিল করার সিদ্ধান্ত নেন শাহনাওয়াজ হোসেন। এরপর গেটের সামনে টুলে দাঁড়িয়েই চাঁচাছোলা ভঙ্গিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে তীব্র ভাষায় সমালোচনা করে বলেন, বাংলায় বিরোধীদের সভাই করতে দিচ্ছে না তৃণমূল। আগে পরিস্থিতি এতোটা অশান্ত ছিল না। এখন রাজ্যে কোনো আইন শৃঙ্খলার বালাই নেই, রাজ্যের গনতন্ত্র বিপন্ন। এই সরকারের আমলে প্রশাসনিক আধিকারিকরা তৃণমূল নেতায় পরিণত হয়েছেন। আর সেজন্যেই বাংলার মাটিতে গনতন্ত্র রক্ষার লড়াইটা বিজেপি শুরু করেছে। আর শত চেষ্টা করেও তৃণমূল কখনোই সে লড়াই দমিয়ে রাখতে পারবে না।

Top
error: Content is protected !!