এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > রাজকুমার রায়ের কন্যার হয়ে ‘আগুন ঝরানো’ খোলা চিঠি পাঠালেন জয়দীপ রায়

রাজকুমার রায়ের কন্যার হয়ে ‘আগুন ঝরানো’ খোলা চিঠি পাঠালেন জয়দীপ রায়

পঞ্চায়েত নির্বাচন করাতে গিয়ে দুর্ভাগ্যজনকভাবে ট্রেনের ধাক্কায় প্রাণ যায় প্রিসাইডিং অফিসার রাজকুমার রায়ের। ভোটগণনার দিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্নে দাঁড়িয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানিয়ে দেন, বিভিন্ন সূত্র থেকে তিনি যা খবর পেয়েছেন তাতে বোঝা যাচ্ছে এটি একটি ‘দুর্ঘটনা’, কিন্তু তবুও সাধারণ মানুষের সন্দেহ নিরসনের জন্য তিনি রাজকুমারবাবুর মৃত্যু নিয়ে সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু রাজকুমারবাবুর পরিবার, পাড়া-প্রতিবেশী সহ রাজ্যের অসংখ্য সরকারি কর্মচারী যাঁরা নির্বাচনের কাজে যুক্ত ছিলেন, তাঁদের ধারণা এটি নিছক দুর্ঘটনা নয়, বরং এর পিছনে থাকতে পারে গভীর রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। আর তাই সিআইডি নয়, একেবারে সিবিআই তদন্ত হোক – এমনটাই দাবি তুলেছেন রাজকুমারবাবুর মা সহ রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের একাংশ। এমনকি রাজকুমারবাবুর মৃত্যুর পরে নির্বাচনের কাজে গিয়ে নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে রীতিমত আতঙ্কিত সরকারি কর্মচারীরা প্রায় গোটা রাজ্য জুড়েই বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

রাজকুমারবাবুর মৃত্যু নিয়ে সমালোচনার ঝড় আছড়ে পড়ছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও। রাজকুমারবাবুর মৃত্যুতে মর্মাহত হয়ে একটি কবিতা লিখেছেন জয়দীপ রায়, যা সোশ্যাল মিডিয়াতে বর্তমানে রীতিমত ভাইরাল। কবিতা হলেও তা যেন রাজকুমার রায়ের কন্যার লেখা একটি খোলা চিঠি। সেই কবিতায় লেখা আছে –

বেটি
জয়দীপ রায়

প্রিয় পিসি
আমি তোমায় চিনি
সংবাদপত্র, টিভিতে দেখেছি, বাবার মুখে নাম শুনেছি
মা কে অনেক তোমায় নিয়ে গর্ব করতে দেখেছি।
আমার কিছু ছোট্ট প্রশ্ন পারলে জবাব দিও
আমি কি আর পারব না শুতে বাবার বুকে কখনো?
বিশ্বাস করো চিনতে পারিনি – কার বুকের ওপর কাঁদছে মা
ভাইটি আমার নীরব শুধু, চোখ ছলছল কিছুই বোঝে না।

সত্যি বলছি চিনতে পারিনি, তিনটুকরো বাবার দেহ
ভোট কাকে বলে দেখতে কেমন ছিল না কোন মোহ!
বাবা গিয়েছিল ভোট করতে গণতন্ত্র পুজোর ভিড়ে
মা বলেছিল সাবধানে থেক তাড়াতাড়ি এসো ফিরে।

ফেরেনি বাবা, ফেরেনি সিঁদুর – মায়ের লাল টুকটুকে সিঁথির
এটাই নাকি তোমার বাংলা, এটাই হবার ছিল?
নবান্ন থেকে তুমি দেখেছ রাজনীতির নাগপাশ –
রেল লাইনের ধরে পরে থাকা কোন গণতন্ত্রের লাশ?
দেখতে যদি এখনো না পাও আমাদের বাড়ি এসো।
গণতন্ত্রের লাশের ওপর রাজগদী নিয়ে বসো।
আমার ভাইয়ের হাতের আগুন বাবার মুখ ছোঁবে
অনাথ হয়েও যদি বেঁচে থাকি আবার দেখা হবে।
একটুকরো আগুন ভরে তোমায় দিলাম চিঠি
সাহস থাকলে উত্তর দিও, আমি রাজকুমারের বেটি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!