এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা >   “পচা আলুতেই আলুরদমের স্বাদ বাড়ে।”তৃণমূল নেতৃত্বকে খোঁটা সব্যসাচীর

  “পচা আলুতেই আলুরদমের স্বাদ বাড়ে।”তৃণমূল নেতৃত্বকে খোঁটা সব্যসাচীর

বিজেপি নেতা মুকুল রায় তাঁর বাড়িতে গিয়ে লুচি, আলুর দম খাওয়ায় তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়। হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন। তিনি বিধাননগরের মেয়র তথা রাজারহাট নিউটাউনের তৃনমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। লোকসভা ভোটের আগে তার বাড়িতে বিজেপি নেতার পদার্পণ নিয়ে সব্যসাচী দত্ত বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে বিভিন্ন মহলে তীব্র জল্পনার সৃষ্টি হয়।

তবে তিনি তৃণমূলেই আছেন এবং তৃণমূলেই থাকবেন বলে জানিয়ে দেন সব্যসাচী বাবু। আর এহেন দোলাচলের মাঝেই লোকসভা ভোটের দামামা বাজবার পরই বারাসাত লোকসভা কেন্দ্র তৃণমূল প্রার্থী কাকলি ঘোষ দস্তিদার প্রচারে ঠিকমতো তাকে ডাকছেন না বলে অভিযোগ তুলতে থাকেন সেই সব্যসাচী দত্তর অনুগামীরা।

অন্যদিকে বিধাননগরের তৃণমূল বিধায়ক সুজিত বসুর সাথে রাজারহাট নিউটাউনের তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের দুঃসম্পর্কের কথা কারোরই অজানা নয়। তবে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর দেখা যায় যে সব্যসাচী দত্তকে নিয়ে তৃণমূলে এত জল্পনা চলছিল, সেই সব্যসাচী বাবুই নিজের বিধানসভা ক্ষেত্র থেকে 23 হাজার 600 ভোটে তৃণমূল প্রার্থী কাকলি ঘোষ দস্তিদার লিড পাইয়ে দিয়েছেন।

অপরদিকে বিধাননগরের তৃণমূল বিধায়ক সুজিত বসুর বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী কোনো লিড পাননি। আর এবার নিজের বিধানসভা কেন্দ্রে লিড দিয়ে তারই সতীর্থ তথা বিধাননগরের তৃণমূল বিধায়ক সুজিত বসুর নাম না করে কটাক্ষ ছুড়ে দিলেন বিধাননগরের মেয়র তথা রাজারহাট নিউটাউনের তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, “ভোটের আগে অনেকে বলেছিল পচা আলুকে সরিয়ে রাখতে হয়। আমার মনে হয়েছে আমি সেই পচা আলু। কিন্তু ফলাফল বলে দিচ্ছে পচা আলুতেই বেশি স্বাদ বাড়ে। কিন্তু টাটকা আলু হরকে গেল। যিনি নিজের ওয়ার্ডে জিততে পারেন না, তিনি আবার বারাসাত লোকসভার কান্ডারী ছিলেন।” আর সব্যসাচী দত্তের এহেন মন্তব্যকে ঘিরেই এবার রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জল্পনা।

অনেকে বলছেন, নিজের বিধানসভা কেন্দ্রে লিড দিয়ে সব্যসাচী দত্ত প্রমাণ করে দিয়েছেন যে তিনি দলের ভালো চান। আর তাইতো নির্বাচনের আগে তাকে নিয়ে তার বিরুদ্ধ গোষ্ঠী তথা তৃণমূল বিধায়ক সুজিত বসু এবং তার অনুগামীরা যেভাবে কটাক্ষ করেছেন, এদিন সেই প্রসঙ্গে পাল্টা সেই সুজিতবাবুর বিরুদ্ধেই মুখ খুললেন সব্যসাচী বাবু বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ।

যা দলের এই দুর্দিনে সব্যসাচী বনাম সুজিতের সম্পর্কের দ্বৈরথকে আরও বাড়িয়ে দেবে বলেই আশঙ্কা করতে শুরু করেছে ঘাসফুল শিবির।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!