এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > করোনার বিরুদ্ধে কঠিন লড়াইয়ে গোটা দেশের একতা বাড়াতে বড়সড় দাওয়াই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর

করোনার বিরুদ্ধে কঠিন লড়াইয়ে গোটা দেশের একতা বাড়াতে বড়সড় দাওয়াই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর


বৃহস্পতিবার রাতেই জানা গিয়েছিল যে, শুক্রবার সকাল ন’টা নাগাদ জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর অতীতের নিদর্শন দেখে দেশবাসীর মধ্যে তা নিয়ে তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছিল। কেননা এর আগে যে করোনা মোকাবিলায় যে দুবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, তখন জনতা কারফিউ বা গোটা দেশ লকডাউনের কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

ফলে বর্তমানে দেশের লকডাউন চললেও, যত দিন যাচ্ছে, ততই যখন মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। আর এই সময় প্রধানমন্ত্রী কী বার্তা দেন, তার দিকে নজর ছিল সকলেরই। অবশেষে এল সেই সময়। শুক্রবার সকাল ন’টায় ভিডিও বার্তায় দেশের মানুষদের উদ্দেশ্যে এক ভিন্ন আবেদন করতে দেখা গেল নরেন্দ্র মোদিকে। ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, “লকডাউনের সময় দেশের মানুষ যেমন অনুশাসনের পরিচয় দিয়েছে, তা অভূতপূর্ব।”

তিনি বলেন, “কেউ একা নয়, সবাই সবার সম্বল। আমাদের এখানে সাধারন মানুষ ঈশ্বরের রূপ। করোনা মহামারীর অন্ধকারের মধ্যে থেকে আমাদের আলোর দিকে যেতে হবে। করোনা সংকটে যারা সব থেকে বেশি প্রভাবিত, সেই গরীব মানুষকে আশার দিকে নিয়ে যেতে হবে। আর সেই জন্য আগামী রবিবার 5 এপ্রিল করোনা সংকটে বিরুদ্ধে লড়তে আমাদের শক্তির পরিচয় দিতে হবে।”

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এরপরেই তিনি আবেদন রাখেন, “5 এপ্রিল আমাদের মহাশক্তির জাগরন করতে হবে। এই দিন রাত নটায় আপনাদের ন’মিনিট আমি চাই। আপনারা ওইদিন রাতে ঘরের সব লাইট বন্ধ করে বারান্দায় দাঁড়িয়ে মোমবাতি, মোবাইলের ফ্লাশ লাইট জ্বালান। তবে এই আয়োজনের সময় কেউ একজোট হবেন না। নিজেরা নিজেরাই পালন করবেন।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আলো হচ্ছে শক্তির উৎস, পজিটিভিটির সূচক। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন ভিডিও বার্তায় সেই কথা তুলে ধরেই সকল দেশবাসীকে আলো জ্বালিয়ে সুদিন ফেরানোর বার্তা দিতে চাইলেন। অনেকে আবার এটাও বলছেন, দেশের সকল মানুষ যখন গৃহবন্দী, তখন অনেকেই মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করেছেন। তাই এই পরিস্থিতিতে কেউ যাতে মানসিক দূরত্ব না বাড়ায়, তার জন্যই এই রবিবার সকলকে একজোট হওয়ার বার্তা দিলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী।

তবে প্রধানমন্ত্রী এদিনের ভিডিও বার্তায় কড়া অনুশাসনের কথা জারি করতে পারেন বলেও মনে করেছিলেন অনেকে। ফলে সেদিক থেকে সেরকম কিছু না হওয়ায় কেউ কেউ আশাহত হয়েছেন। কিন্তু ভিডিও বার্তায় এসে সকাল-সকাল প্রধানমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় ঘর অন্ধকার রেখে যেভাবে রবিবার নয় মিনিট সাধারণ মানুষের কাছ থেকে সময় চেয়েছেন, তার সময়পোযোগী সদব্যাখ্যা রয়েছে বলেই দাবি বিশ্লেষকদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!