এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় এবার বাংলার ধর্মনিরেপেক্ষতা নিয়ে চিত্র প্রদর্শনী – অংশগ্রহণ করতে পারবেন আপনিও

মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় এবার বাংলার ধর্মনিরেপেক্ষতা নিয়ে চিত্র প্রদর্শনী – অংশগ্রহণ করতে পারবেন আপনিও

দুর্গাপূজোর অষ্টমীতে তিনি যেমন উপোস করে অঞ্জলী দেন ঠিক তেমনি ঈদের সময় একমাস ধরে রোজাও রাখেন। আবার ২৪ শে ডিসেম্বর রাত ১২ টার সময় চার্চেও যান। হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন – তিনি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দেশজুড়ে যখন সাম্প্রদায়িক অসহিষ্ণুতা ছেয়ে গেছে বলে বারেবারে অভিযোগ উঠেছে, তখনও তিনি এই বাংলাতে সর্বধর্ম সমন্বয়ের কথাই বলেছেন। তাঁর কাছে ঘৃনা, বিভেদের রাজনীতির বিরুদ্ধে এই বাংলা হল সবাইকে নিয়ে একসাথে উৎসব পালন করা। এবারে সেই বিভেদের রাজনীতির বিরুদ্ধেই মুখ্যমন্ত্রীর বার্তাকে সরকারি স্তরেও ঠাঁই দেওয়ার কাজ শুরু করে দিল নবান্ন।

জানা গেছে, রাজ্যের তথ্য সংস্কৃতি দপ্তরের পক্ষ থেকে প্রতিবছর যে ফটোগ্রাফি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় – এবারও তা করা হয়েছে। কিন্তু এবারের থিম – “ধর্ম আমার, ধর্ম তোমার, উৎসব সবার”। অন্য কেউ নন এই থিম বেরিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর মাথা থেকেই – আর বর্তমান রাজনৈতিক অসহিষ্ণু পরিবেশের মধ্যে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রীর এই সংবেদনশীল ভাবনাকে ছবির মত সাজিয়ে তুলতে উঠেপড়ে লেগেছেন নবান্নের কর্তারা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

সবথেকে বড় কথা রাজ্য-সরকারের এই উদ্যোগে সরাসরি যোগদান করতে পারবেন আপনিও। সূত্রের খবর, একজন আলোকচিত্রী এই প্রতিযোগিতায় একটি বিভাগে চারটি করে ছবি পাঠাতে পারবেন। যেগুলি অবশ্যই ১৮ ইঞ্চি বাই ২২ ইঞ্চি মাপের হতে হবে। ‘হাই রেজলিউশন’ এই ছবিগুলি ‘সিডিতে’ এই ছবিগুলি পাঠাতে হবে টালিগঞ্জের ৭২, দেশপ্রান শাসমল রোড, কোলকাতা – ৭০০০ ০৩৩ – এই ঠিকানায়। আগামী ৩১ শে ডিসেম্বরে পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতায় নাম দেওয়া যাবে বলে জানা গেছে।

কিন্তু এই প্রতিযোগিতার পুরস্কার-মূল্যের তালিকায় ঠিক কী রয়েছে? তথ্য সংস্কৃতি দপ্তর সূত্রের খবর, বিগত বছরে এই প্রতিযোগীতায় প্রথম স্থানাধিকারীর জন্য ১২ হাজার টাকা থাকলেও এবার তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ২০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় স্থানাধিকারীর ক্ষেত্রে ৯ হাজার থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা এবং তৃতীয় স্থানাধিকারীকে এবার ১০ হাজার টাকা টাকা দেওয়া হবে, যা আগে ছিল ৭ হাজার টাকা।

পাশাপাশি বিগত বছরের মত থাকছে বিশেষ পাঁচটি পুরস্কারও। যার আর্থিক মূল্য বাড়িয়ে এবার করা হয়েছে সাত হাজার টাকা। এছাড়াও, এই পুরস্কার-মূল্যের সাথে থাকছে স্মারক ও শংসাপত্রও। বিশেষজ্ঞদের মতে, এবার এই প্রতিযোগিতার বিষয় নির্বাচন অত্যন্ত সময়োপোযোগী হয়েছে। কেননা, দেশজুড়ে যখন ভেদাভেদের রাজনীতি চলছে বলে বারেবারে অভিযোগ উঠেছে তখন বাংলার এই প্রতিযোগিতায় ধর্ম এবং উৎসব যে সকলের তা ফের প্রমান করতে চাইছেন বাংলার অগ্নিকন্যা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!