এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > পিএফ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে 21 তারিখ আপৎকালীন বৈঠক

পিএফ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে 21 তারিখ আপৎকালীন বৈঠক

অবশেষে লোকসভা নির্বাচনের আগে এবার কর্মচারী প্রভিডেন্ট ফান্ডের সুদের হার অপরিবর্তিত হিসেবেই রেখে দেওয়া হচ্ছে। জানা গেছে, গত 2017-18 আর্থিক বর্ষে ইপিএফের সুদের হার 8.55 শতাংশ হারে ঘোষণা করেছিল কেন্দ্র। আর 2018-19 এ সেই হারই রেখে দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এদিকে এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আগামী 21 ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রকের কর্মচারী ভবিষ্যনিধি সংগঠনের অছি পরিষদের সদস্যরা জরুরী ভিত্তিতে একটি বৈঠকও ডেকেছেন। আর লোকসভা ভোটের আগে এই অছি পরিষদের বৈঠকে আদৌ ন্যূনতম মাসিক পেনশন বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে আদৌ আলোচনা হবে কি না তা নিয়ে একটা ধন্দ থেকেই যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সাম্প্রতিককালে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বিভিন্ন স্বল্প সঞ্চয় প্রকল্পে সুদের হার কমিয়ে দেওয়ায় দেশের মধ্যবিত্ত মানুষদের রোষের মুখে পড়েছে কেন্দ্রে বিজেপি সরকার। এমনকি 2013-14 সালের ইপিএফের 8.75 শতাংশ সুদের হার 2014-15 অপরিবর্তিত রাখা হলে পরবর্তীতে 2015-16 সালে সেখানে কিছুটা সেই সুদের হার বৃদ্ধি করে তা করা হয় 8.8 শতাংশ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এমনকি 2016-17 সালে তা ফের কমিয়ে 8.65 শতাংশ এবং 2017-18 সালে তা আরও কমিয়ে 8.55 শতাংশে নামিয়ে আনা হয়। তবে আসন্ন লোকসভা ভোটের আগে চলতি আর্থিক বসে তা যদি ফের কমে যায় তাহলে যে মধ্যবিত্ত মানুষদের রোষের মুখে পড়তে পারে কেন্দ্রীয় সরকার সেই আশঙ্কাও করছেন অনেকে।

বর্তমানে সারা দেশে মোট ইপিএফ পেনশন প্রাপকের সংখ্যা রয়েছে প্রায় 62 লক্ষের মত। যার মধ্যে প্রায় 40 লক্ষ গ্রাহক দেড় হাজার টাকার কম মাসিক পেনশন পান। আর ইপিএফের পক্ষ থেকে গঠিত একটি উচ্চপর্যায়ের কমিটি ন্যূনতম মাসিক পেনশন বৃদ্ধির জন্য সুপারিশ করে একটি রিপোর্ট দিয়েছে।

আর সেই রিপোর্টের ভিত্তিতেই আগামী 21 ফেব্রুয়ারির বৈঠকে পেনশন বৃদ্ধির মত বিষয়টি উঠে আসতে পারে। সব মিলিয়ে আগামী 21 ফেব্রুয়ারি পিএফ নিয়ে বৈঠকের দিকেই এখন তাকিয়ে রয়েছে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!