এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মহার্ঘ ভাতা থেকে পে-কমিশন, সরকারি কর্মী ও পার্শ্ব শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী

মহার্ঘ ভাতা থেকে পে-কমিশন, সরকারি কর্মী ও পার্শ্ব শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী

সরকারি কর্মীরা অনেকদিন ধরেই রাজ্যের পাওনা ডিএ থেকে বঞ্চিত। যা নিয়ে সরকারের কাছে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া তোলা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে অভিযোগ সরকারি কর্মচারীদের একাংশের। উল্টে মহার্ঘ ভাতা নিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে একসময় বলতে শোনা গিয়েছিল, “এত ঘেউ ঘেউ করবেন না।” যা নিয়ে বিরোধী থেকে সরকারি কর্মচারীরা রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে সমালোচনার বন্যা বইয়ে দিয়েছিলেন।

একজন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তাদের হক পাওনা চাইতে গেলে কেন “ঘেউ ঘেউ” শব্দ প্রয়োগ করে সরকারি কর্মচারীদের নিচুস্তরে নামানোর সাহস দেখালেন বাংলার প্রশাসনিক প্রধান! তা নিয়ে বিভিন্ন মহলেই উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। তবে বিভিন্ন মহলের তরফে মুখ্যমন্ত্রীর এই শব্দ প্রয়োগ নিয়ে বিরোধিতা করা হলেও ফের সরকারি কর্মচারীদের ডিএ এবং পে কমিশন দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।রাজ্যের ষষ্ঠ পে কমিশনের রিপোর্ট জমা পড়ার আগে কার্যত নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, যতটা তিনি মনে করবেন, ততটাই করবেন।

সূত্রের খবর, আজ হাওড়ার শরৎ সদন একটি প্রশাসনিক বৈঠকে রাজ্যের শিক্ষকদের কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে তিনি বলেন, “পলিটিক্যালি কেউ রাস্তায় বসে পড়ছে। এদের সামলানো আমার কাজ নয়। এসব করতে গিয়ে জনগণের কাজটা হচ্ছে না। অনশনের নামে নানান দাবি। শুধু তাদের কাজ হবে, খালি দাও, দাও, দাও। কন্যাশ্রী, যুবশ্রী, 2 টাকা কেজি দরে চালের টাকা বন্ধ করে দাও। শুধু কয়েকটা লোকের টাকা বাড়িয়ে দাও, সব সময় দাও, দাও! এত টাকা আসবে কোথা থেকে!”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

পাশাপাশি সরকারি পেনশন নিয়েও এদিন মুখ খোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন, “ত্রিপুরা এবং বাংলা একমাত্র পেনশন দিত। ত্রিপুরা পেনশন বন্ধ করলেও আমরা করিনি। এখন শিক্ষকরাও 1 তারিখে বেতন পান।” অন্যদিকে পে কমিশন সম্পর্কেও এদিন মুখ খোলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। পাশে বসা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে সাথে নিয়েমমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমি পার্থদাকে জিজ্ঞাসা করছিলাম যে, এটা কি হচ্ছে বলুন তো! 2014 সালে প্যারা টিচারদের বেতন 4000 টাকা থাকলেও 2018 সালে তা বাড়িয়ে 10 হাজার টাকার বেশি করা হল। কেউ কেউ বলছে বেতন না বাড়ালে আমরা ক্লাসে যাব না। কালো ব্যাচ পড়ে নাকি ক্লাস করবে! এসব দেখে বাচ্চারা কি শিখবে!”

আর এরপরই রীতিমতো পার্শ্ব শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে হুশিয়ারি দিতে দেখা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। যেখানে তিনি বলেন, “এক বছর আগে প্যারাটিচারদের মাইনে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্র সরকার সর্বশিক্ষা মিশনের টাকা না দেওয়া সত্ত্বেও আমরা করছি। এসব কথায় কথায় আন্দোলন আর ধর্মঘট আর মানা যাবে না।” সব মিলিয়ে শিক্ষকদের আন্দোলন ও বকেয়া ডিএ নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!