এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > সবং উপনির্বাচনে জয়ের পিছনে ‘আসল’ রহস্য ফাঁস করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

সবং উপনির্বাচনে জয়ের পিছনে ‘আসল’ রহস্য ফাঁস করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

সবংয়ে টিএমসির বিপুল জয়ের মূল কারণ রাজ্যের উন্নতি, দাবি মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। সবং বিধানসভা উপনির্বাচনে জয় লাভের পর দলের হয়ে প্রতিক্রিয়া দেওয়ার সময় পার্থবাবু জানালেন, তৃণমূলের পশ্চিমবঙ্গে আনা উন্নয়নের জোয়ার তাদের জয়ের একমাত্র কারণ। এই জোয়ারে যোগ দেবার জন্য তিনি জাতীয় কংগ্রেস পার্টিকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত,দলবদলে মানস ভূঁইয়ার তৃণমূলে যোগ দান কংগ্রেসের সবং লড়াইয়ে দুর্যোগ টেনে এনেছিল। মাত্র ১৮ হাজার ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থানে এখন কংগ্রেস। এদিন কংগ্রেসের এত খারাপ ফলের কারণে সাংবাদিক প্রশ্নের উত্তরে পার্থবাবু কটাক্ষের সুরে বলেন, কংগ্রেসকে প্রথমে ঠিক করতে হবে সিপিএম না বিজেপি না কার সাথে তারা থাকবেন! নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কল্যানকর উন্নয়নের সাথে তাঁরা থাকবেন। আর স্বভাবতই এই মন্তব্যের পর রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার শুরু হয়ে গিয়েছে। অনেকের বক্তব্য এই কটূক্তির দ্বারা পার্থবাবু পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসের প্রাসঙ্গিকতাকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে তাঁদেরকে তৃণমূলের পাশে থাকার কথা পরামর্শ দিয়েছেন। পাল্টা জবাবে কংগ্রেসের বিধানসভার নেতা আব্দুল মান্নান বলেন, তৃণমূলের প্রথমে ঠিক করা উচিত তাঁরা কাদের সাথে থাকবেন, কংগ্রেস না বিজেপি। কংগ্রেস সর্বভারতীয় দল যারা বিজেপির সাথে লড়াই করছে, তৃণমূল কেবল এই রাজ্যেই সীমাবদ্ধ, পার্থবাবুর কোনো কথাই নতুন নয়, আগের উপনির্বাচনেও একই কথা বলেছেন তিনি। সবাই জানে তারপর কি হয়েছে।
উল্টোদিকে সবং উপনির্বাচনে সিপিএমের পরই বিজেপির স্থান। এইবারে বিজেপির জয় লাভ না হলেও ভোটবৃদ্ধি হয়েছে তাদের। কিন্তু রবিবার বিকেলে নাকতলার বাড়িতে সাংবাদিক বৈঠকে বিজেপির ভোটবৃদ্ধিকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে চাইনি পার্থবাবু। তিনি বলেন, কে কোন স্থানে তাতে তার কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই। কিন্তু তৃণমূলের বিরুদ্ধে এত নিন্দা, কুৎসা, মিথ্যা প্রচার চালানো সত্ত্বেও রাজ্যের উন্নয়ন যে সবংয়ের মানুষের চোখে পড়েছে তা ভোটের ফলে খুব স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। অন্যদিকে মুকুল রায়ের সবংয়ে বিজেপির প্রচারকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, কে কোথায় পরে আছেন – জলে না কাদায়, তা জানা নেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!