এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দিলীপ ঘোষদের তীব্র কটাক্ষ পার্থ চ্যাটার্জির, বিজেপি তৃণমূলের চাপানউতোর তুঙ্গে

দিলীপ ঘোষদের তীব্র কটাক্ষ পার্থ চ্যাটার্জির, বিজেপি তৃণমূলের চাপানউতোর তুঙ্গে



একদিকে তৃণমূল চাইছে বাংলায় নিজেদের ক্ষমতা ধরে রাখতে ও অন্যদিকে বিজেপি চাইছে রাজ্যে তাদের দিকে যে হাওয়া বইছে তাকে কাজে লাগিয়ে তৃণমূলকে গদিচ্যুত করে বাংলার দখল নিতে। আর এই কারণেই যে যার মতো করে গুটি সাজাচ্ছে। তৃণমূল তাদের ক্ষমতা ধরে রাখতে প্রশান্ত কিশোরকে সমস্ত দ্বায়িত্ব দিয়েছে যা নিয়ে রীতিমতো তর্ক যুদ্ধ চলছে তৃণমূল ও বিরোধীদের মধ্যে আর এদিকে বিজেপির নানা কার্যকলাপেও তৃণমূল কটাক্ষ করতে ছাড়ছে না। সব মিলিয়ে জোর চাপানউতোর চলছে রাজ্যে।

এদিকে এদিন ফের সেই চাপানউতোর দেখা গেলো। গান্ধীমোড়ে একটি সভা হয় বিজেপির। সেখানে বারাবনির তৃণমূল বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়ের আত্মীয় মলয় উপাধ্যায়কে কেন নেওয়া হয়েছে এই প্রশ্ন তুলে বিক্ষোভ দেখতে শুরু করে বিজেপি কর্মীসমর্থকরা। অসাবথা ক্রমশ উতপ্ত হয়ে ওঠে শেষে তা চেয়ার ছোড়াছুড়িতেও পৌঁছে যায়। কোনোক্রমে অবস্থার সামাল দেয় নেতা নেত্রীরা। শুধু এই নয় বিজেপির চিন্তন শিবিরেও অশান্তি দেখা যায়। চিন্তন শিবিরের বাইরে জেলা সভাপতি লক্ষ্মণ ঘোড়ুইকে সরানোর দাবিতে বিক্ষোভ দেখায় এক দল কর্মী। ফলে সব মিলিয়ে যখন বড়সড় অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির ঠিক সেই সময় অবস্থার সুযোগ নিতে ছাড়লেন না তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জী।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন যে, বলেন,’যাঁদের দলের উপরে নিয়ন্ত্রণ নেই, তাঁরা বাংলাকে নিয়ন্ত্রণ করার স্বপ্ন দেখছেন? বিজেপির হাঁড়গোড় সব বেড়িয়ে পড়ছে। বাংলায় একটাই মুখ মমতার। চিন্তন করে মোকাবিলা করা বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয়। বাংলায় ওরা বিগ জিরো।’ প্রশান্ত কিশোরের মস্তিষ্কপ্রসূত ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচী রূপায়ণে পথে নেমেছে সাংসদ থেকে বিধায়ক। পার্থ চট্টোপাধ্যায় দাবি করেন, যে বিপুল সাড়া ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচীতে পাওয়া যাচ্ছে তাতে বিজেপি শিবির চিন্তিত হয়ে পড়েছে।

 

যদিও বিজেপি নেতা বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরী দলের এমন অশান্তির পিছনে তৃণমূলের হাত দেখছেন। তার দাবি তৃণমূল ষড়যন্ত্র করে এই কাজ করেছে । এদিকে  চিন্তন বৈঠকের শেষে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ অবশ্য পিকে ফ্যাক্টরকে কোনোমতেই পাত্তা না দিয়ে বিজেপি র সাথে যে বিপুল জনসমর্থন আসছে সেকথা জানিয়ে তৃণমূলকে সাবধান করেছেন তিনি এবং প্রশান্ত কিশোরের হাত ধরেই যে তৃণমূলের ভরাডুবি হবে সেকথা জানাতেও ভোলেননি তিনি। কিন্তু যাই হোক এর ফলে যে কিছুটা হলেও বিজেপিতে অস্বস্তি ছাড়িয়েছে তা এককথায় মানছেন রাজনৈতিকমহলও।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!