এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পঞ্চায়েতের ডামাডোলের মাঝেই পার্শ্বশিক্ষকদের জন্য বড়সড় ঘোষণা সর্বশিক্ষা মিশনের

পঞ্চায়েতের ডামাডোলের মাঝেই পার্শ্বশিক্ষকদের জন্য বড়সড় ঘোষণা সর্বশিক্ষা মিশনের

আসন্ন ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত হওয়ার কারণে পেশাগত কোনো সংকটে পড়ছেন না পার্শ্বশিক্ষকেরা। রাজ্য নির্বাচন কমিশন আগেই এই বিষয়ে নির্দেশিকা জারী করে বলে যে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার ক্ষেত্রে রাজ্যের পার্শ্বশিক্ষকদের ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। উল্লেখ্য গত ১৮ ই এপ্রিল পার্শ্বশিক্ষকদের উদ্দেশ্যে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে পশ্চিমবঙ্গ সর্বশিক্ষা মিশন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

সেখানে বলা হয়েছে, কোনো পার্শ্বশিক্ষক যদি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্যে তাঁদের শিক্ষক পদ থেকে পদ ত্যাগ করে থাকেন এবং সেই পদত্যাগপত্র যদি গ্রহণ করা হয়ে থাকে তবে অল্প সময়ের মধ্যেই দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা প্রকল্প আধিকারিক সেই পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করে নেবেন। বিদ্যালয় শিক্ষা দফতর এই বিষয়ে একটি নির্দেশিকা জারী করে যার ভিত্তিতেই পার্শ্বশিক্ষকদের পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে সর্বশিক্ষা মিশন। ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছিল, যদি কোনও পার্শ্বশিক্ষক পঞ্চায়েত নির্বাচনে পূর্ণ সময়ের কোনও পদে নিয়োগ হন, তা হলে তাকে তাঁর কাজ থেকে পাঁচ বছরের জন্য লিয়েন অর্থাত্‍, ছুটি দেওয়া হবে। সেই নির্ধারিত সময় অতিক্রম করার পর তিনি আবার তাঁর কাজে যোগ দিতে পারবেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

সর্বশিক্ষা মিশনের বিজ্ঞপ্তিতে বেজায় আনন্দিত পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল কংগ্রেস পার্শ্বশিক্ষক সমিতি । এই প্রসঙ্গে সংগঠনের সভাপতি রমিউল ইসলাম বললেন, ”আগে নিয়ম ছিল ভোটে প্রার্থী হতে হলে আমাদের পদত্যাগ করতে হবে। কিন্তু, স্কুল শিক্ষা দফতর বলে দিয়েছে, পার্শ্বশিক্ষকরা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন এবং পাঁচ বছরের লিয়েনও পাবেন। এই জন্য যাঁরা পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছিলেন, সে সব গ্রহণ করা হল না। অর্থাৎ, তাঁরা চাকরিতে বহাল থাকলেন।পার্শ্বশিক্ষকদের নিয়ে একটি ভ্রান্ত ধারণা তৈরি হয়েছিল যে, তাঁরা জোরজবরদস্তি মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আসলে তা হয়নি। আমরা পদত্যাগপত্র জমা দিয়েই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলাম।দেরিতে হলেও নির্দেশিকাটি সর্বশিক্ষা মিশন সুন্দরভাবে দিয়েছে। তাতে ভালো লাগল। এই আইনের ফলে আগামী দিনে পার্শ্বশিক্ষকদের অনেক সুবিধা হবে। পার্শ্বশিক্ষকরা আপামর জনগণ হিসাবে নির্বাচনে লড়াই করতে পারবেন।” অন্যদিকে সর্বশিক্ষা মিশনের এই বিজ্ঞপ্তিকে সাধুবাদ জানিয়ে বঙ্গীয় শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সমিতির সহ সাধারণ সম্পাদক স্বপন মণ্ডল বললেন, ”পার্শ্বশিক্ষকদের নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল তা কাটল এই বিজ্ঞপ্তিতে। আমরা এটাকে স্বাগত জানাচ্ছি।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!