এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার আন্দোলনে নামছেন ক্ষুব্ধ পার্শ্বশিক্ষকরা

এবার আন্দোলনে নামছেন ক্ষুব্ধ পার্শ্বশিক্ষকরা

বার বার মুখ্যমন্ত্রীকে জানানো হয়েছে আর তাছাড়া ২০০৭ সালে বামফ্রণ্ট সরকারের সময় আন্দোলনে নেমেছিল পার্শ্বশিক্ষকরা তৎকালীন বিরোধী নেত্রী মমতা ব্যানার্জি আশ্বাস দিয়েছিলেন “তৃণমূল ক্ষমতায় এলে পার্শ্বশিক্ষকদের সমস্যা মিটবে।” ২০১১ সালে ক্ষমতায় এসেই মমতা ঘোষণা করলেন, ছয় মাস থেকে তিন বছরের মধ্যে ধাপে ধাপে স্থায়ী করা হবে।কিন্তু আজ পর্যন্ত বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে সর্বশিক্ষা মিশন বা রাজ্য সরকারের কোনও হেলদোল নেই। যার ফলে অবসাদ বাড়ছে পার্শ্বশিক্ষকদের। অনেকে আত্মঘাতী হয়েছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। আর এরই প্রতিবাদে এবার বড়সড় আন্দোলনের পথে নামলো পার্শ্বশিক্ষকরা। আগামী ১৮ ডিসেম্বর দক্ষিণবঙ্গ এবং ২০ ডিসেম্বর উত্তরবঙ্গ জুড়ে DPO অফিস অভিযানের ডাক দিল পার্শ্বশিক্ষক ঐক্যমঞ্চ।মোট ছয় দফা দাবি নিয়ে ফের আন্দোলনের পথে পার্শ্বশিক্ষকরা।
দাবিগুলি হলো –
১. অবিলম্বে পার্শ্বশিক্ষক -শিক্ষিকাদের “পে ব্যান্ড উইথ গ্রেড পে ” এর আওতায় আন্তে হবে।
২.সাঁওতালি ভাষার পার্শ্বশিক্ষক -শিক্ষিকাদের ডি.ই আই. ই ডি কোর্স চালু করতে হবে।
৩. বিদ্যালয়ের সব ধরণের কমিটিতে পার্শ্বশিক্ষক -শিক্ষিকাদের প্রতিনিধিত্ত্ব করার সুযোগ দিতে হবে।
৪. কর্মরত অবস্থায় মৃত পার্শ্বশিক্ষক -শিক্ষিকাদের পরিবারকে ১ লক্ষ টাকা সহ পোষ্যকে চাকরি দিতে হবে।
৫.অবিলম্বে সামাজিক সুরক্ষা হিসাবে ই. এস.আই. প্রদান করতে হবে এবং নিযুক্তির দিন থেকে ই.পি.এফ প্রদান করতে হবে।
৬. চাইল্ড কেয়ার ও প্রীতীকালীন ছুটি দিতে হবে।

 

পার্শ্বশিক্ষকদের মতে প্রাথমিকস্তরে তাদের বেতন ৫ হাজার ৪৪৫ টাকা। উচ্চ প্রাথমিকস্তরে ৭ হাজার ২০৪ টাকা। এই টাকায় সংসার চালানো দায়।ফলে বাধ্য হয়েই আন্দোলনে নামতে হচ্ছে তাদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!