এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পঞ্চায়েত ভোটে অব্যবস্থা নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুমকি দিলেন সরকারি কর্মচারীরা

পঞ্চায়েত ভোটে অব্যবস্থা নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুমকি দিলেন সরকারি কর্মচারীরা

বিজেপি দলের কর্মচারী যৌথ মঞ্চের রাজ্য সভাপতি অজয় কুমার ভুঁইয়া এদিন যৌথভাবে  রাজ্য নির্বাচন কমিশনার এবং মুখ্যমন্ত্রীকে তোপ দাগলেন। তিনি সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজ্যের অস্থির এবং সন্ত্রাসের পরিবেশ সৃষ্টির জন্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দায়ী করে তাঁর পদত্যাগ দাবি করলেন। একইসাথে তিনি নির্বাচন কমিশনার অমরেন্দ্র কুমার সিংকে ‘ধ্বজভঙ্গ’ আধিকারিক বলে হেয় করলেন। রাজ্য সরকার প্রসঙ্গে নিজের অভিমত জানিয়ে অজয় বাবু বললেন,   ”যে রাজ্যে মানুষ তার গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারে না, সেই স্বৈরাচারী সরকারের আর দরকার নেই।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

অবিলম্বে অপদার্থ মুখ্যমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে। কারণ যে রাজ্যে সাধারণ পঞ্চায়েত নির্বাচনে ২৬জন মানুষের প্রাণ যায় সেই অপদার্থ সরকারকে রাজ্যের মানুষ আর চায় না। এইভাবে জুলুমবাজি করে বেশীদিন টেকা যায় না।” আবার রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সম্পর্কে ব্যাঙ্গ করে তিনি বললেন, ”এই নির্বাচন কমিশন হেলে সাপ, যার না আছে ফণা, না আছে ফোঁস করার ক্ষমতা। নির্লিপ্ত অপদার্থ। তা নাহলে এতগুলো প্রাণ এভাবে চলে যায় কি করে? কোর্টের আদেশ সত্ত্বেও কমিশন নির্বিকার। ধ্বজভঙ্গ আধিকারিক। উনি ওই চেয়ারে বসার অযোগ্য। কারণ, ভোটের ডিউটিতে গিয়ে উত্তর দিনাজপুরের ইটাহারে প্রিসাইডিং অফিসার অন্তর্ধান হয়ে গেল। পরদিন লাশ পাওয়া গেল। এ কেমন কমিশন?”  তিনি এদিন নিজের দূর্ভাগ্যের দোহাই দিয়ে দাবি করলেন , ”আমাদের দুর্ভাগ্য যে, আমরা সারা ভারতবর্ষের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের মতো একটি সন্ত্রাস কবলিত রাজ্যে বাস করছি, যেখানে নির্বাচন কমিশন অপদার্থ ও পঙ্গু এবং অপরদিকে মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একজন অপদার্থ।” রাজ্য সরকার সম্পর্কে তাঁর ব্যক্তিগত অভিযোগে তিনি জানালেন , ”বাংলার মানুষ নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে বিগত ৩৪ বত্‍সরের বাম সরকারকে হটিয়ে পরিবর্তনের সরকারকে ক্ষমতায় এনেছিল। অথচ মৃত্যুর মিছিল সহ লাশের সারি দিয়ে তার উপহার দিচ্ছে মমতার সরকার।” রাজ্যের প্রাক্তন সরকার এবং বর্তমান সরকারের মধ্যে তুলনামূলক আলোচনা করলেন তিনি। রাজ্যের বর্তমান শাসক দলের অতীতে বিরোধী দল হিসেবে কর্ম তৎপরতা এবং বর্তমানে শাসক দল হিসেবে অপদার্থতা কথা উল্লেখ করে তিনি বললেন, ”বাম আমলে এই মুখ্যমন্ত্রী তথা তত্‍কালীন বিরোধী নেত্রী কথায় কথায় সিবিআই তদন্ত চাইতেন। কথায় কথায় বনধ ডাকতেন। রাস্তায় নেমে চিত্‍কার করতেন রাজ্যে গণতন্ত্র নেই। এখন ওনার আমলে এটা কি হচ্ছে? গণতন্ত্র না সেবাতন্ত্র? কারণ এখন উনি রাজ্য প্রশাসনের প্রধান। তাই এখন ফেলে আসা পেছনের দিনগুলির কথা উনি ভুলে গেছেন।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!