এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন নিয়ে জেলায়-জেলায় সংঘর্ষ, স্থগিতই হয়ে গেল এই জেলায়

পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন নিয়ে জেলায়-জেলায় সংঘর্ষ, স্থগিতই হয়ে গেল এই জেলায়

পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন। যা নিয়ে রক্তের হোলিখেলা চলছে গ্রামবাংলায়। সূত্রের খবর,মঙ্গলবার এই বোর্ড গঠনকে ঘিরে চরম উত্তপ্ত হয় উত্তর দিনাজপুরের ইটাহার গ্রাম পঞ্চায়েত। শাসক তৃনমূলের সাথে বিরোধী বিজেপির খন্ডযুদ্ধে গুরুতর জখম হন পাঁচ পুলিশ কর্মী। এমনকী এখানে পুলিশের গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। তবে শেষপর্যন্ত জেলা তৃনমূল সভাপতি অমল আচার্যর গড়ে বিজেপি এবং কংগ্রেস পঞ্চায়েত দখল করায় এখানে শাসকদলের ভূমিকা নিয়েই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।  

তবে শুধু ইটাহার নয়, এদিন এই জেলার চোপড়ার দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনের আগেই খাটাখাওয়া এবং ডোংরাগছে সিপিএম এবং কংগ্রেসের সাথে শাসকদলের সংঘর্ষে পাঁচজন গুলিবিদ্ধও হন। তবে এখানে তৃনমূলই বোর্ড গঠন করে। পরে পুলিশ এসে কাদানে গ্যাস ফাটিয়ে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনে। এদিকে উত্তর দিনাজপুরে যখন বোর্ড গঠন ঘিরে অশান্তি চলছে ঠিক তখন সেই অশান্তির আঁচ পাওয়া গেল পাশের জেলা দক্ষিন দিনাজপুরের সদর শহর বালুরঘাটেও।

সূত্রের খবর, এই বালুরঘাটের ডাঙা পঞ্চায়েতের এক বিজেপি কর্মী অপহরনের ঘটনায় পথ অবরোধ করলে পরে সেই বিজেপি কর্মী ফিরে আসলে শান্ত হয় পরিস্থিতি।  এদিকে এই বোর্ড গঠন ঘিরে কোচবিহারের দিনহাটার পেটলায় তৃনমূল ও তৃনমূল যুব সংগঠনের কোন্দলে শাসকদলেরই দুই কর্মী জখম হন। তবে শুধু উত্তরবঙ্গই নয়, দক্ষিনবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়িতেও এদিন বোর্ড গঠনকে ঘিরে ছিল টানটান উত্তেজনা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তৃনমূলের অভিযোগ, বিজেপি তাঁদের মহিলা সদস্যদের অপহরন এবং মারধর করে। এ প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “দাঁতনে তৃনমূল আমাদের সদস্যদের আটখে রেখেছে। তাই পুলিশ যতক্ষন না আমাদের সদস্যদের উদ্ধার করবে ততক্ষন আমরাও ওদের সদস্যদের আটকে রাখব।” এদিকে এই ঘটনায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে হয়েছে বলে জানান জেলা তৃনমূলের সভাপতি অজিত মাইতি। সব মিলিয়ে হামলা, গন্ডগোল, সংঘর্ষ এবং অবশেষে বোর্ড গঠনে উত্তপ্ত এরাজ্য।

Top
error: Content is protected !!