এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনে বিজেপির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ উঠলো, প্রকাশ্যে এল অডিও ক্লিপ

পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনে বিজেপির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ উঠলো, প্রকাশ্যে এল অডিও ক্লিপ

পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে ফের অভিযোগের আঙুল উঠল বিজেপির দিকে। এবার বোর্ড গঠনে ঘোড়া কেনাবেচার অভিযোগের নিশানায় খোদ রাজ্য বিজেপি দিলীপ ঘোষ। বোর্ড গঠনে তৃণমূল নেতাকে কিনতে চাইছে বিজেপি। সেজন্যে ফোন করে জরুরি বার্তালাপ সেরে নিতে বলা হচ্ছে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে। এমনটাই দাবি করা হয়েছে কলকাতার একটি জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যমে। দেয় সংবাদমাধ্যমের দাবি অনুযায়ী, ফোনে স্পষ্ট বলা হচ্ছে তৃণমূল জেলা স্তরের সংগঠনকে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়ার কথা। এই কথাবার্তা সম্বলিত একটি অডিও ক্লিপ সামনে আসলো এদিন। আর এটি প্রকাশিত হতেই হইচই পড়ে যায় রাজ্য রাজনৈতিকমহলে।

যদিও টাকার বিনিময়ে তৃণমূল নেতাকে কেনার অভিযোগ একেবারের তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দাবীতে তিনি জানালেন,’পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনে কোনো নেতাকে ভাঙানো হচ্ছে না।’

ওই সংবাদমাধ্যমের দাবি অনুযায়ী, অডিও ক্লিপের আওয়াজ শুনে অনেকেই চিহ্নিত করেছেন যে নদীয়া উত্তরের বিজেপি নেতা মহাদেব সরকারকে। সে দেবী মানতে নারাজ মহাদেববাবু। যুক্তিতে তিনি জানালেন,তিনি অনেকের গলার স্বরই নকল করতে পারদর্শী। সেখানে নিজের গলাকে এমন অফার দেওয়ার কোনো মানেই হয় না। প্রমাণ স্বরূপ তিনি নিজেই পাশে বসে থাকা এক স্থানীয় বিজেপি নেতা জয়দেব বসুর স্বর নকল করে দেখিয়ে দিলেন। শুধু তাই নয়,পাশাপাশি এটাও দাবী করলেন,বিজেপির ফোনে অন্যায়ভাবে আড়ি পাতছে তৃণমূল। তবে ঘুরিয়ে তৃণমূলের ঘাড়ে দোষ দিতে তিনি কি ঘোড়া কেনাবেচায় বিজেপির হাত থাকার প্রসঙ্গটিকেই একরকম উসকে দিলেন না? এটা নিয়ে রীতিমতো প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।পাশাপাশি ওই সান্দারমাধ্যমের দাবি যে অডিও ক্লিপ বিতর্কে মহাদেব বাবুর পাশাপাশি নাম জড়িয়েছে রাজ্য বিজেপির কোষাধ্যক্ষ শবর ধনানিয়ার। শবর বাবুরও গলার স্বরের মিল পাওয়া গিয়েছে ওই অডিও ক্লিপটির সঙ্গে। প্রমাণ বাড়িয়ে সামনে এসেছে,শবর বাবুর মোবাইলের কলার টিউন এবং অডিও ক্লিপের কলার টিউন দুটোই এক্। এ বিষয়টি নিয়ে শবর বাবুকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, তিনি তার ফোনে কোনো কলার টিউন যোগই করেননি। এটা নাকি তাঁর অজান্তেই কেউ করেছে। এসব তিনি কিছুই তিনি জানেননা বলেই দাবী করলেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে কন্ঠস্বর প্রসঙ্গে মুখে কুলুপ এঁটে রইলেন বিজেপি কোষাধ্যক্ষ। এখানেই সংশয় থেকে যাচ্ছে। উল্লেখ্য,উক্ত ইস্যুতে সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীর গলায় কিন্তু শোনা গেল উল্টো সুর। তিনি এটাকে ‘পুরানো রেওয়াজ’ বলেই উল্লেখ করেছেন। বাম জামানায় তৃণমূলস্তরেও এরকম হতো বলে বলে জানালেন তিনি। তবে এসব অপরাধমূলক কাজ বড় জায়গায় পাত্তা পেত না। তৃণমূলকে কটাক্ষের সুরেই আক্রমণ শানিয়ে দাবীতে জানালেন,’উচ্ছিষ্ট নেতাদের নিতে তৃণমূলই সবসময় লাফালাফি করে।’

যদিও এই খবরের সত্যতা বা সূত্র সম্পর্কে ওই ওয়েব পোর্টালে কিছু লেখা নেই, প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফেও এই খবরের সত্যতা যাচাই করে দেখা সম্ভব হয় নি। এই প্রবন্ধ সম্পূর্ণরূপে ওই পোর্টালে প্রকাশিত খবরের পরিপ্রেক্ষিতে করা, কোনোভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বা কোনো ব্যক্তি বা দলের সম্মানহানির উদ্দেশ্যে রচিত নয়।

Top
error: Content is protected !!