এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > অপরাধীর ছবি তোলার অপরাধে কান ধরতে বাধ্য করলো অফিসারের গাড়িচালক

অপরাধীর ছবি তোলার অপরাধে কান ধরতে বাধ্য করলো অফিসারের গাড়িচালক

তাঁর অপরাধ শুধু এই যে বনকর্মীদের নিষেধ সত্ত্বেও তিনি জঙ্গলের চোরাচালানকারীদের এবং পাচারকৃত হাতির দাঁতের ছবি তুলেছিলেন। আর সেই অপরাধেই আদালত চত্বরে ঐসময়ে উপস্থিত জগদীশ রায় নামক জনৈক এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্যে নিজের কান ধরতে বাধ্য করলো বনকর্মীরা। ঘটনাস্থল জলপাইগুড়ি জেলা আদালত চত্বর। এদিন সেখানেই হাতির দাঁত সহ বনবিভাগের হাতে ধৃতকে আদালত পেশ করার জন্য বেলাকোবার বনকর্মীরা নিয়ে আসেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এইসময়ে আদালত চত্বরে হাতির দাঁতের ছবি ও অভিযুক্তদের ছবি তোলার জন্য সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। আর ঠিক তখনই সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের ছবি তোলার সময়েই জগদীশ রায় নামক জনৈক ঐ ব্যক্তি মোবাইলে ছবি তুলতে থাকেন। জলপাইগুড়ি বেলাকোবা রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্তর গাড়িচালক জ্যোতিষ রায় এই দৃশ্য দেখা মাত্রই জগদীশ রায়ের মোবাইল ছিনিয়ে নেন। একই সাথে গলার সুর চড়িয়ে অভিযুক্ত জগদীশ রায়কে শাসন করতে শুরু করেন।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

শুধু তাই নয় এরপরে বনবিভাগের কর্মী দীপক রায় প্রধান ও জ্যোতিষ রায় দু’জনেই একসাথে জগদীশ রায়কে কান ধরে ক্ষমা চাইতে বলেন  এবং তাঁর মোবাইলে তোলা ছবিও ডিলিট করা হয়। এইসব দেখে সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা যখন ছবি তুলতে তৎপর হয়ে ওঠে। তারাও এই দুই বনকর্মীর বাধার মুখে পড়েন। আদালত চত্বরে এদিনের গোটা ঘটনা জানার পরে বিট অফিসার সেখানে উপস্থিত সকলের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এবং নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে তিনি বললেন, “মোবাইল কেড়ে নিয়ে কান ধরানোটা উচিত হয়নি। এমন ভুল আর হবে না। যা করেছে ভুল করেছে। ” অন্যদিকে রাজ্যের অতিরিক্ত প্রধান মুখ্য বনপাল এম আর বালুচ বললেন, “এমন কী করে হল তা খতিয়ে দেখতে হবে। বেলাকোবার রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্ত বলতে পারবেন কেন তাঁর কর্মী ও ড্রাইভার এমন কাজ করলেন। এমন ঘটনা আগে কখনও শুনিনি। আমি বিষয়টি জানার চেষ্টা করছি।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!