এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মিটিয়ে নতুন করে ঘুরে দাঁড়াতে বড়সড় দায়িত্ব ও পদ মৌসম নূরকে

গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মিটিয়ে নতুন করে ঘুরে দাঁড়াতে বড়সড় দায়িত্ব ও পদ মৌসম নূরকে



সম্প্রতি উত্তরবঙ্গের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জায়গা বলে পরিচিত মালদহ জেলা রাজনীতিতে তৃণমূলের অন্দরমহলে ফাটল ধরতে শুরু করেছিল। ইংরেজবাজার এবং পুরাতন মালদহ পৌরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তৃণমূল কাউন্সিলরদের অনাস্থা প্রবল বিপাকে ফেলেছিল জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব এবং রাজ্য তৃণমূল নেতৃত্বকে। যার ফলে জটিলতা দিনকে দিন বেড়েই যাচ্ছিল।

পৌরসভার কাজকর্ম এই অনাস্থা আনার জন্য না হওয়ায় অস্বস্তিতে পড়তে হচ্ছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। আর এবার অবশেষে এই গোটা ব্যাপারটিকে মোকাবিলার জন্য একটি কমিটি করে তার চেয়ারপার্সন করা হলে মালদহ জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী মৌসম বেনজির নূরকে।

সূত্রের খবর, সোমবার দুই পৌরসভার কর্মকর্তাদের নিয়ে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের পক্ষ থেকে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন মালদহের তৃণমূল পর্যবেক্ষক গোলাম রব্বানী, হেমন্ত শর্মা সহ অন্যান্যরা। জানা যায়, সেখানেই ইংরেজবাজার পৌরসভার জন্য একটি নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। যে কমিটিতে চেয়ারপার্সন হিসেবে মৌসম বেনজির নূর থাকলেও সেখানে রয়েছেন, সেই পৌরসভার চেয়ারম্যান নীহার রঞ্জন ঘোষ, ভাইস চেয়ারম্যান দুলাল সরকার, পৌরসভার 2 প্রাক্তন চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী, নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি, দুই সিআইসি সদস্য অম্লান ভাদুড়ি এবং আশিস কুন্ডু।

একইভাবে পুরাতন মালদহ পৌরসভার ক্ষেত্রে সেই মৌসম বেনজির নূরের নেতৃত্বে কমিটিতে রাখা হয়েছে সেই পৌরসভার চেয়ারম্যান কার্তিক ঘোষ, ভাইস চেয়ারম্যান চন্দনা হালদার, সহ-সভাপতি বিভূতিভূষণ ঘোষ, কাউন্সিলর সফিকুল ইসলাম, বশিষ্ঠ ত্রিবেদী এবং শিবাঙ্কর ভট্টাচার্যকে। দুই পৌরসভার জটিলতা কাটাতে এদিন এই কমিটি ঘোষণা করা হলেও তা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করতে শুরু করেছেন অনেক তৃণমূল কাউন্সিলররা।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তাদের মতে, পুরসভার কাজে নজরদারির জন্য দল কমিটি গঠন করতে পারে। কিন্তু সেই কমিটি পুরসভার অভ্যন্তরীণ কাজে কোনভাবেই নাক গলাতে পারবে না। তবে এই কমিটি নিয়ে কি বলছেন ইংরেজবাজার পৌরসভা এবং পুরাতন মালদহ পৌরসভার চেয়ারম্যানরা?

এদিন এই প্রসঙ্গে ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান নীহার রঞ্জন ঘোষ বলেন, “আমি যেকোনো ধরনের তদন্তের মুখোমুখি হতে রাজি। দল আমাকে চেয়ারম্যান পদে বসিয়েছে। দল পুরসভার কাজকর্মে নজর রাখতেই পারে। এনিয়ে আপত্তি উঠবে কেন!” একইভাবে দলের সিদ্ধান্ত আমরা মানব। দল যেভাবে পরামর্শ দেবে, সেভাবেই চলা হবে বলে জানিয়েছেন পুরাতন মালদহ পৌরসভার চেয়ারম্যান কার্তিক ঘোষ।

এদিকে নতুন কমিটির প্রসঙ্গে সেই কমিটির মাথা তথা মালদহ জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী মৌসম বেনজির নূর বলেন, “কিছুদিন আগেই 2 পৌরসভায় অনাস্থা এসেছিল। তারপর রাজ্য নেতৃত্ব আমাদের পুরসভায় নজড় রাখার জন্য নির্দেশ দেয়। দুই পৌরসভার সকলকে নিয়ে এদিন বিকেলে কোর কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমি দুটি কমিটির চেয়ারপার্সন হিসেবে কাজ করব। এর ফলে চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা খর্ব হবে না। আমরা বিভিন্ন কাজকর্মে নজর রাখার পাশাপাশি পুরসভাকে পরামর্শ দেব। ইংরেজবাজার পৌরসভার অনেক সমস্যা রয়েছে। শহরের সৌন্দর্যের জন্য আমরা কাজ করব। ইংলিশবাজার পুরসভার বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন অভিযোগের তদন্ত করা হবে। রাজ্য থেকে কবে তদন্ত কমিটি পাঠানো হবে, তা শীঘ্রই জানা যাবে।”

তবে এই দুই পৌরসভায় অচলাবস্থা কাটাতে তৃণমূলের তরফে কমিটি গঠন করা হলেও সেই কমিটি আদৌ সমস্যার সমাধান করতে পারে কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!