এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এনআরসি নিয়ে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে তৃণমূল ফের দাবি বিজেপি সংসদের

এনআরসি নিয়ে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে তৃণমূল ফের দাবি বিজেপি সংসদের

আসামে এনআরসির শুরু থেকেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে এসেছেন বিজেপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে। আসামে নাগরিক পঞ্জিকার তালিকা বেরোলে দেখা যায়, সেখানে 19 লক্ষ মানুষ হয়েছেন গৃহহারা। যার মধ্যে 11 লক্ষ হিন্দু আছেন। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির বিরুদ্ধে এনআরসি প্রয়োগ করার প্রতিবাদে তৃণমূল নেতৃত্ব রাজপথে নেমে প্রতিবাদ শুরু করে। এন আর সির বিরুদ্ধে এক মহা মিছিল হয়। তবে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি প্রয়োগ করার কথা বলার পর থেকেই একের পর এক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে চলেছে। যা নিয়ে বিজেপি শিবিরে অস্বস্তি স্পষ্ট।

এনআরসি আতঙ্কে কিছুটা হলেও বিজেপি চাপে পড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। মানুষকে আশ্বস্ত করতে এদিন আসরে নামেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। তিনি এনআরসি আতঙ্কে মানুষের আত্মহত্যার ঘটনায় সম্পূর্ণ দায় তৃণমূলের কাঁধে চাপিয়েছেন। পরিষ্কার করে জানিয়েছেন, রাজ্যে এনআরসি আতঙ্ক ছড়াচ্ছে তৃণমূল। তিনি মানুষকে আশ্বস্ত করেন আগে নাগরিকত্ব বিল পাস হবে তারপরে রাজ্যে এনআরসি চালু হবে। ফলে এখনই আতঙ্কগ্রস্ত হওয়ার মতন কিছু হয়নি।

এনআরসি নিয়ে আত্মহত্যার সংখ্যা যতই বাড়ছে, বিজেপিও ততধিক চাপে পড়ছে। তবে এদিন লকেট চট্টোপাধ্যায় অবস্থা সামাল দিতে বলেন, এনআরসি আতঙ্কে মৃত্যুর ঘটনা আসলে একটা ষড়যন্ত্র। ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে মানুষ মারা যাচ্ছে।

এনআরসি নিয়ে এদিন লকেট চট্টোপাধ্যায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বলেন, সাধারণ জনগণের মধ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে তৃণমূল এনআরসি আতঙ্ক ছড়িয়ে দিচ্ছে। মানুষকে এনআরসি নিয়ে ভুল বোঝাচ্ছে তৃণমূল। পরবর্তীতে এর ফল কিন্তু তৃণমূলকে ভুগতে হবে বলে তিনি জানান।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

লকেট চট্টোপাধ‍্যায় এদিন আরো বলেন, যারা বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী এবং যারা দেশে বিভিন্ন রকম সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে তাদেরকে রাজ্য ছাড়া করাই এনআরসির উদ্দেশ্য। সাধারণ মানুষের এই নিয়ে ভয়ের কোন কারণ নেই। প্রত্যেকেই বৈধ নাগরিকত্ব পাবেন। লকেট চট্টোপাধ্যায় হিন্দু ঐক্য নিয়েও তাঁর দাবি জানান।

অনুপ্রবেশ নিয়ে লকেট চট্টোপাধ্যায় পরিষ্কার অভিযোগের আঙুল তোলেন তৃণমূলের দিকে। তাঁর দাবি, তৃণমূল সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনের জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে অনুপ্রবেশ ঘটিয়েছে এতদিন। ভোটব‍্যাঙ্কের বিকাশ ঘটাতেই তৃণমূলের এরূপ পদক্ষেপ বলে জানান লকেট।

তবে এনআরসি নিয়ে প্রথম থেকেই বিজেপি শিবির দাবি করেছে, অনুপ্রবেশ আটকাতে একমাত্র প্রয়োজন এনআরসির। অনুপ্রবেশের ফলেই রাজ্যে বা দেশে নিত্যদিন বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ হয়ে চলেছে। এদিন বিজেপি সংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় এর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এখনো পর্যন্ত তৃণমূল নেতৃত্বের তরফ থেকে কোনো মন্তব্য জানা যায়নি। তবে পরবর্তীতে এনআরসির প্রতিবাদে রাজ্য সরকার কোন পদক্ষেপ নেয় সেদিকে নজর থাকবে তামাম রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!