এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > প্রকাশিত এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা, বাদ 19 লক্ষ, উঠছে একাধিক প্রশ্ন

প্রকাশিত এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা, বাদ 19 লক্ষ, উঠছে একাধিক প্রশ্ন

অবশেষে প্রকাশিত হল অসমের চূড়ান্ত এনআরসি তালিকা। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে সেই এনআরসি তালিকা থেকে বাদ গেল সাড়ে 19 লক্ষ মানুষের নাম। যা নিয়ে এখন তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। বস্তুত, বিগত 1952 সালের পর এই প্রথম অসমে নাগরিক পঞ্জিকরন তালিকা প্রকাশিত হল।

অতীতে এনআরসি তালিকায় 41 লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়ায় তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। তাই এবারে প্রকাশিত এনআরসিতে আরও কারও নাম বাদ যায় কিনা, তা নিয়ে প্রথম থেকেই চিন্তায় ছিলেন অসমের মানুষ। আর এরই মধ্যে এই এনআরসি তালিকা অনলাইনে প্রকাশ হওয়ার সাথে সাথেই দেখা যায় সেখানে অসমের তিন কোটি 11 লক্ষ মানুষের নাম থাকলেও সাড়ে 19 লক্ষ মানুষের নাম বাদ গেছে। আর তালিকা থেকে নাম বাদ পড়ায় বিরোধী দল কংগ্রেস এবং বামেদের পাশাপাশি বিজেপির পক্ষ থেকেও এই ব্যাপারে শোরগোল তোলা হয়েছে।

একসময় এনআরসির প্রবল সমর্থক হলেও এদিন সেই তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর তার সম্পর্কে কিছুটা বিরূপ মন্তব্য করতে দেখা গেছে অসমের অর্থ মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মাকে। এদিন তিনি বলেন, “এই এনআরসি তালিকা অসমের লক্ষ্য পূরণে সহায়ক হবে না। কারণ একদিকে যেমন এতে প্রকৃত ভারতীয় নাগরিকদের নাম বাদ দিয়েছে, তেমনই আবার বহু অনুপ্রবেশকারীর নামও ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। এনআরসির পরিবর্তে আমাদের এবার অন্য কোনো ব্যবস্থা শুরু করতে হবে।”

এদিকে ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল বলেন, “যে 19 লক্ষ নাম চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ গেল, তাদের এখনই বেআইনি নাগরিক বলা যাবে না।” কিন্তু কীভাবে এই সমস্যার সমাধান হবে! সূত্রের খবর, যে 19 লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়েছে, আগামী চার মাসের মধ্যে তাদের প্রথম কাজ হবে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে আবেদন করা। তারপর সেখানে একে একে শুনানি প্রক্রিয়া শুরু হলে যতদিন না সেই প্রক্রিয়া শেষ হচ্ছে, ততদিন সেই সমস্ত ব্যক্তিদের সন্দেহভাজন আখ্যা দেওয়া হলেও তাদের কোনোমতেই অনুপ্রবেশকারী বলা যাবে না বলে জানা গেছে। আর গোটা বিষয়টি যে অনেকটাই সময়সাপেক্ষ, সেই ব্যাপারে সন্দেহ নেই কারোরই।

এদিকে অসমে এই এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর বাংলায় এই এনআরসি হতে পারে বলে বিজেপি নেতাদের মন্তব্যে জল্পনা ছড়িয়েছে। সীমান্তবর্তী রাজ্যগুলিতে এই অনুপ্রবেশকারীর সমস্যা থাকায় সেখানে এনআরসি করতে হবে বলে বিজেপি নেতারা দাবি জানাচ্ছেন। ফলে এবার কি এনআরসি বাংলাতেও প্রয়োগ করা হবে! এখন এই জল্পনাই সর্বত্র ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!